প্রায় বিলুপ্ত বাংলার কিছু আদি পেশা ও বাহারি খাবার : সৃষ্টি নিউজ
  1. niblkvzwjcfd@inbox.ru : 12asd www.sristy.net :
  2. admin@sristy.net : admin :
  3. ERHRC23wddsf@gmail.com : AdminZaxHH34 :
  4. readzituckda@yahoo.com : alexandriablanch :
  5. jimgann@gmx.com : alexiscastiglia :
  6. marybetsuto@gmx.com : alfiedeville3 :
  7. krapnikovbogdan@gmail.com : allisoncraine72 :
  8. denzduquet@gmx.com : anastasiablau :
  9. xaviersecrest7784@hidebox.org : andreasarmstead :
  10. miswe@gmx.com : angelika3897 :
  11. vickymunro@hidebox.org : apriljoy55956 :
  12. atcurtita1982@coffeejeans.com.ua : archievelazquez :
  13. orsoncopseykwb@mail.com : armoale :
  14. aurelio.trujillo@kinomaxru.ru : aurelio66o :
  15. aconinab@yahoo.com : barrykeartland :
  16. imogenelee@midmico.com : basil17724819 :
  17. marianekoczu@gmx.com : beaudarrow2 :
  18. limaranna@yahoo.com : billarhonda :
  19. ivanletvinko1992@gmail.com : bradlyflanagan :
  20. vieconkasu1981@aabastion.com.ua : calebdenson :
  21. darwinlucas@varsidesk.com : cecilensu1 :
  22. ioaugspurge@gmx.com : celinapersinger :
  23. felisschak@gmx.com : chadwickclemente :
  24. marvistlou@gmx.com : charastillwell7 :
  25. imogthore@gmx.com : charityg02 :
  26. ovalenci@gmx.com : chris08v415816 :
  27. porskr@gmx.com : christiangiven7 :
  28. andreasbessie@petsplit.com : christimcleish3 :
  29. ruthstockm@gmx.com : chuechols79682 :
  30. tradamateqkala832@yahoo.com : cindicharbonneau :
  31. naja.bendtsen.1997@web.de : clariceaiello8 :
  32. wiboubalia3765@inbox.ru : clevelandgratwic :
  33. fredericla@gmx.com : clevelandhayter :
  34. moricigrumant@outlook.com : clobwik :
  35. jeanicmassar@gmx.com : collincruickshan :
  36. jonikug@gmx.com : cyrilharrel697 :
  37. reomanbuper@yahoo.com : danielageorgina :
  38. diacheckficmu@yahoo.com : demetriuschester :
  39. jetttardent@1secmail.com : doloreshalligan :
  40. pogewgep@yandex.ru : dominikbayldon :
  41. carolygall@gmx.com : dorris06k07965 :
  42. dorreineck@gmx.com : dougz6629398122 :
  43. thomaspoqu@gmx.com : elisax67493 :
  44. darrhafle@gmx.com : elissa0159 :
  45. matodesucare2@web.de : elysebrodzky :
  46. glindmartic@gmx.com : epifaniadiamond :
  47. cyswa@gmx.com : ericacani548345 :
  48. holshinau@gmx.com : eusebiaavera :
  49. evicop@gmx.com : fausto37r75774 :
  50. jonepooleys@outlook.com : favvari :
  51. soledmacquarr@gmx.com : fawn33p8526 :
  52. keyssin@gmx.com : felixfetty :
  53. viepourfitip1983@coffeejeans.com.ua : flor113329777 :
  54. eboneuhar@gmx.com : frankiekahl35 :
  55. leatmana@gmx.com : gemmafoley0677 :
  56. iolanthnitkowsk@gmx.com : grantmannix200 :
  57. stanformatt@gmx.com : hannahroybal :
  58. alcervero1977@coffeejeans.com.ua : harrylarocca51 :
  59. gamagru@gmx.com : iolagill498824 :
  60. robiniccol@gmx.com : jefferystones2 :
  61. rodrickschreiner9984@safeemail.xyz : jestine1603 :
  62. leontinsticke@gmx.com : joeykozak322122 :
  63. timotcwalin@gmx.com : joleneangeles :
  64. jazaloud@gmx.com : jsvhalina0 :
  65. margotmaybell@kogobee.com : julissahyatt69 :
  66. elliottnewman4891@kittenemail.com : kaylenelombardo :
  67. charleysabo5394@hidebox.org : kelliaguilar942 :
  68. Kratos@AS10.dDNSfree.Com : Kratos :
  69. trogn@gmx.com : latoshabarrenger :
  70. latosha_peach@northernpinetreetrust.co.uk : latoshapeach8 :
  71. lauritheriot3@marry.raytoy.com : lauritheriot802 :
  72. gloriwu@gmx.com : leonor7342 :
  73. chrishal@gmx.com : lessierra6297 :
  74. paulettoschuppjedbra@gmail.com : levix80850161 :
  75. inpatalve@yahoo.com : lilianachambliss :
  76. chebotarenko.2022@mail.ru : linomcdavid76 :
  77. cipletede@yahoo.com : lorrichumleigh :
  78. csten@gmx.com : louissoubeiran3 :
  79. bremanocch@gmx.com : lourife80058359 :
  80. euphemisnid@gmx.com : lucielaidley891 :
  81. arrun@gmx.com : madiebellasis56 :
  82. sharilyurspr@gmx.com : malissak49 :
  83. lescutasoft@yahoo.com : malloryworgan45 :
  84. vinnisapa@gmx.com : mariloubriones :
  85. antoineeaston6275@hidebox.org : mauriciododds43 :
  86. notforalluse1@gmail.com : md Shopon islam :
  87. soninorr@gmx.com : merryschaefer :
  88. zeravemn7795@inbox.ru : milesrimmer16 :
  89. trazcoundiothe@yahoo.com : molliehoy920286 :
  90. tilpenttrafal@yahoo.com : monroefoust90 :
  91. derkar@gmx.com : murielelias102 :
  92. medpern@gmx.com : myracory91 :
  93. jorva@gmx.com : niamhdement0 :
  94. chawilf@gmx.com : philomenalogan4 :
  95. cheliheami1131@inbox.ru : porfirio55k :
  96. theobalnewna@gmx.com : qgrkimberly :
  97. esterntwandablette@gmail.com : rory416241 :
  98. lanerep@gmx.com : roseannebou :
  99. debrooz@gmx.com : rudygaither1427 :
  100. smtpfox-opnkm@hetmobielecafe.be : rxrhack1337 :
  101. kitcud@gmx.com : sandymuecke :
  102. shahindom76@gmail.com : Shahin :
  103. vegantato@yahoo.com : shanibeer61077 :
  104. ariadcamer@gmx.com : shastafoss1221 :
  105. joytr@gmx.com : shelleytrethowan :
  106. enedinrodge@gmx.com : sherylm662 :
  107. tmatushevs@gmx.com : sonjawhittell0 :
  108. donour@gmx.com : stantonfitzgibbo :
  109. lescriven@gmx.com : stephanielewers :
  110. karla.nguyen.1993@web.de : tandymccartney :
  111. laura.dalgaard.1984@web.de : taniabernal84 :
  112. test10581124@inboxmail.imailfree.cc : test10581124 :
  113. test11218044@mailbox.imailfree.cc : test11218044 :
  114. test13168404@mailbox.imailfree.cc : test13168404 :
  115. test16442707@mailbox.imailfree.cc : test16442707 :
  116. test17414361@mailbox.imailfree.cc : test17414361 :
  117. test18828469@inboxmail.imailfree.cc : test18828469 :
  118. test18964396@mailbox.imailfree.cc : test18964396 :
  119. test19347793@mailbox.imailfree.cc : test19347793 :
  120. test20429266@email.imailfree.cc : test20429266 :
  121. test2109320@inboxmail.imailfree.cc : test2109320 :
  122. test21326394@mailbox.imailfree.cc : test21326394 :
  123. test22717633@email.imailfree.cc : test22717633 :
  124. test26056460@mailbox.imailfree.cc : test26056460 :
  125. test28055302@email.imailfree.cc : test28055302 :
  126. test29683271@mail.imailfree.cc : test29683271 :
  127. test30138553@email.imailfree.cc : test30138553 :
  128. test31035553@email.imailfree.cc : test31035553 :
  129. test31383434@inboxmail.imailfree.cc : test31383434 :
  130. test3229074@inboxmail.imailfree.cc : test3229074 :
  131. test34149248@mailbox.imailfree.cc : test34149248 :
  132. test34245072@email.imailfree.cc : test34245072 :
  133. test37547205@email.imailfree.cc : test37547205 :
  134. test37779061@mailbox.imailfree.cc : test37779061 :
  135. test38205197@email.imailfree.cc : test38205197 :
  136. test38664372@mailbox.imailfree.cc : test38664372 :
  137. test39129282@mailbox.imailfree.cc : test39129282 :
  138. test40389914@mailbox.imailfree.cc : test40389914 :
  139. test43975584@mailbox.imailfree.cc : test43975584 :
  140. test44295207@mailbox.imailfree.cc : test44295207 :
  141. test44746441@email.imailfree.cc : test44746441 :
  142. test45001979@inboxmail.imailfree.cc : test45001979 :
  143. test45341961@mailbox.imailfree.cc : test45341961 :
  144. test48548203@inboxmail.imailfree.cc : test48548203 :
  145. test48811218@mailbox.imailfree.cc : test48811218 :
  146. test49907937@mailbox.imailfree.cc : test49907937 :
  147. test5474540@mailbox.imailfree.cc : test5474540 :
  148. test636733@mailbox.imailfree.cc : test636733 :
  149. test6956998@mail.imailfree.cc : test6956998 :
  150. test9226500@mailbox.imailfree.cc : test9226500 :
  151. onpilemo@yahoo.com : tiffanyhueber4 :
  152. dmitriy@ataberkestate.com : TimothyTroub :
  153. jaylkozeya@gmx.com : toneyspann6 :
  154. flp2k15e2@wuuvo.com : user_eignkp :
  155. viszczeblew@gmx.com : vilmar120074004 :
  156. medewal@gmx.com : xehnydia2599 :
প্রায় বিলুপ্ত বাংলার কিছু আদি পেশা ও বাহারি খাবার : সৃষ্টি নিউজ
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫৪ পূর্বাহ্ন

প্রায় বিলুপ্ত বাংলার কিছু আদি পেশা ও বাহারি খাবার

কাউনিয়া (রংপুর) থেকে আব্দুল কুদ্দুছ বসুনিয়া
  • প্রকাশিত : শনিবার, ৯ মার্চ, ২০২৪
  • ৯১ বার পঠিত
প্রায় বিলুপ্ত বাংলার কিছু আদি পেশা ও বাহারি খাবার

প্রায় বিলুপ্ত বাংলাার কিছু আদি পেশা ও বাহারি খাবার ।

খাদ্য সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ, সেটা প্রাচীনকাল থেকেই প্রমাণিত। একসময় বাংলায় আমিষ খাবারের জনপ্রিয়তা ছিল। পাল যুগে বৌদ্ধ ও সেন যুগে ব্রাহ্মণ্য ধর্মের প্রভাবে নিরামিষের প্রচলন বাড়ে। সুলতানি আমলে ইসলামি সংস্কৃতির প্রসার প্রভাবিত করে এখানকার খাদ্যাভ্যাসকে। ঢাকা প্রাদেশিক রাজধানী হলে খাদ্যাভ্যাসে আবার পরিবর্তন আসে। তখন থেকে ঢাকার রন্ধনপ্রণালিতে পারসিক খাদ্যরীতির প্রবেশ ঘটে, জন্ম নেয় এক বিশেষ খাদ্যসংস্কৃতি যাকে আমরা আজ ‘ঢাকাই খাবার’ নামে জানি। ঢাকার খাবারে ঔপনিবেশিক উপাদান ও পর্তুগিজ প্রভাবকেও অস্বীকার করার সুযোগ নেই।

বাখরখানি/বাকরখানি:
ফার্সি ‘বাখর’ শব্দের অর্থ ‘ফ্লেভার্ড’ (সুরভিত)। এর সঙ্গে হয়তো আগা বাখর ও খনি বেগমের প্রেমকাহিনির খুঁজতে যাওয়া কল্পনার নামান্তর। কিন্তু ইতিহাস চর্চায় কিংবদন্তি ও রূপকথাকে পুরোপুরি আলাদা করা যায় না। ঢাকার বাখরখানির উৎস কাশ্মিরিদের হেঁসেল, যা মুঘল আমলের খাদ্যসম্ভারের সঙ্গে সুবে বাংলায় প্রবেশ করে।

প্রাদেশিক রাজধানী হওয়ায় কাশ্মিরি জনগোষ্ঠী ঢাকা কাশ্মিরিটোলায় আস্তানা গাড়ে। কাশ্মির এর উৎস হলেও স্থানীয় কারিগররা একে তার বৈশিষ্ট্য দিয়েছেন, গড়ে তুলেছেন তার নিজস্বতা। ঢাকার প্রকৃত বাখরখানি তৈরি হতো খাঁটি ঘি, দুধ, ময়দা, মাওয়া, খমির দিয়ে। সঙ্গে যোগ হতো মাংস, পনির, চিনি, ছানা, নারকেল।

উনিশ শতকের চল্লিশের দশকে হাকিম হাবিবুর রহমান ঢাকার খাদ্যদ্রব্য তৈরি সম্পর্কে বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি প্রধানত গও জোবান, শুকি এবং নিমশুকি- তিন ধরনের বাখরখানির কথা বলেছেন। চিনশুখাও একপ্রকার বাখরখানি, যা বিশেষত চিনি দিয়ে তৈরি করা।

কাওয়াম:
ঢাকার বিনোদন সংস্কৃতিতে পান তামাকের বিশেষ স্থান ছিল। কাওয়াম ফার্সি শব্দ যার অর্থ তামাক। কাওয়াম বানানোর একটি প্রক্রিয়া ছিল। তামাকের পাতা দুই তিন দিন ভিজিয়ে রাখা হতো। তারপর তা জ্বাল দেওয়া হতো পানিতে। এরপর পাতা নিংড়ে তা ফেলে দিয়ে যে নির্যাস থাকত তা আগুনে শুকিয়ে নেয়া হতো। ঐ সময় সুগন্ধীর জন্য ঐ নির্যাস বা মন্ডতে মেশানো হতো এলাচি, দারুচিনি এবং লবঙ্গ।

কাকচা:
উনিশ শতকে ঢাকায় বিস্কুটের মতো এক ধরনের খাদ্যদ্রব্য বেশ জনপ্রিয় ছিল। এর তিনটি ধরন ছিল- কাকচা, কুলচা এবং নানখতায়ী। ময়দা দিয়ে এগুলো তৈরি হতো। মচমচেও মিষ্টি গন্ধের দিক থেকে যা অদ্বিতীয় ছিল। নানখতায়ী বিশ শতকের ষাট দশক পর্যন্ত বেশ প্রচলিত ছিল। আগের কাকচা ও কুলচা বিশ শতকের প্রথমার্ধেই লুপ্ত হয়ে গেছে।

কাঞ্জি:
উনিশ শতকের গোড়ার দিকে ঢাকাসহ উত্তরাঞ্চলের আদি অধিবাসীদের কাছে কাঞ্জির কদর ছিল। প্রতিদিন রান্নার পরে গরম ভাত পানি ভর্তি পাত্রে রাখা হতো। কয়েকদিন পর খানিকটা পচে যেত। পাত্রের উপরের পানি স্বচ্ছ হলে কাত করে ওই স্বচ্ছ পানি আলাদা করে খাওয়া হত। হতো এটি পরিচিত ছিল কাঞ্জি নামে।

বগুণি ভাত:
উনিশ শতকের গোড়ার দিকে ঢাকার আদি অধিবাসীদের কাছে কাঞ্জি পিঠা বা ভাতের কদর ছিল। প্রতিদিন রান্নার আগে চাল ধোয়ার পর একমুঠো চাল আলাদা পানি ভর্তি পাত্রে রাখা হতো। কয়েকদিন পর খানিকটা পচে হলুদ হলে, সেই চাল বেটে পিঠা তৈরি করা হতো। অনেক সময় পিঠা না করে ভাত হিসেবে রান্না করা হতো এটি পরিচিত ছিল কাঞ্জি পিঠা বা ভাত নামে

কাবুলি:
উনিশ শতকের শেষার্ধ ও বিশ শতকের প্রথমার্ধে মধ্যবিত্তের প্রিয় খাবার ছিল কাবুলি। এটি এক ধরনের খিচুড়ি যাতে দেওয়া হতো মটরদানা বা সবুজ বুট। পরে এর সঙ্গে মেশানো শুরু হয় খাসির মাংস। অনেক সময় বুট বা মটরের বদলে দেওয়া হত শিমের বিচি। এক সময় খাসির মাংসের বদলে মুরগি দেওয়া শুরু হয়।

গুলকন্দ:
ঢাকার বিয়ের আসরে গোলাপ জল, সঙ্গে দারুচিনি মিশিয়ে এক ধরনের শরবত পরিবেশন করা হতো যা পরিচিত ছিল গুলকন্দ নামে।

গোলামনাবাদ:
ঢাকায় ১৯ শতকের শেষার্ধ এবং ২০ শতকের গোড়ার দিকে নানা রকম চা বানানো হতো। এর মধ্যে কাশ্মিরী চা বেশ সুস্বাদু ছিল যা কাশ্মিরীটোলার কাশ্মীরিরাই খেতেন। তবে বিখ্যাত ছিল গোলামনাবাদ। চা হিসেবে পরিচিত হলেও আসলে তা ছিল এক রকমের শরবত। বিয়ের আসরে আমন্ত্রিতদের তা পান করতে দেওয়া হতো। এতে দারুচিনি, লং, গুলকন্দ বা গোলাপজল ইত্যাদি ব্যবহৃত হতো।

জাহাজি কালিয়া:
সফর বা ভ্রমণের কারণে ঢাকায় উদ্ভাবিত হয়েছিল জাহাজি কালিয়া। আগে পালের জাহাজে ভ্রমণের সময় শুকনো খাবার নিতে হতো যা নষ্ট হবে না। মনে হয় মধ্যপ্রাচ্য থেকে জাহাজিরা এই কালিয়ার ফর্মুলা নিয়ে এসেছিল ঢাকায় যা ঢাকাইয়ারা নিজের মতো করে নিয়েছিল। জয়তুন তেল ব্যবহার করে মাছ বা মাংসের দুই রকমের কালিয়াই তৈরি হতো। এর বিশেষত্ব ছিল এটি গরম করা যাবে না এবং কাঠের শুকনো চামচ ছাড়া অন্য কিছু ব্যবহার করা যাবে না। কয়েক মাস পর্যন্ত এই কালিয়া থাকতো।

তোরাবন্দি :
বিশ শতকের ত্রিশ-চল্লিশ দশক পর্যন্ত ঢাকার তোরাবন্দী খাবার ছিল বিখ্যাত। বিশেষ বিশেষ উৎসবে এর ব্যবস্থা করা হতো। ঈদের দিন ধনী ব্যক্তিরা তোরাবন্দী খাবারের আয়োজন করতেন। এই খাবারের সারিতে থাকতো চার প্রকারের রুটি, চার রকমের পোলাও, চার রকমের নানরুটি চার প্রকারের কাবাব, পানির বোরহানি ও চাটনি। অর্থাৎ প্রত্যেক পদের খাবার চার পদের থাকতো। মোট ২৪ পদের কম থাকতো না।

দম পোখ্ত:
এক রকমের কোরমা। ফুলকপি, আলুর দম পোখ্ত হতো। ঢাকায় কোরমার জন্য বিশেষ মসলা ব্যবহৃত হতো। দম পোখ্তের মধ্যে শ্রেষ্ঠ ছিল বাঁধাকপির দম পোখ্ত। যা ছিল ঢাকার বিশেষ আবিষ্কার এর স্বাদ অনেকদিন পর্যন্ত ভোলা যায় না।

দোগাশা ও মোতাজান:
উনিশ শতক পর্যন্ত ঢাকার জনপ্রিয় বিরানী ছিল দোগাশা ও মোতাজান। এই বিরিয়ানি একেবারে বিলুপ্ত হয়েছে তা নয়, হয়তো অন্যরূপ নিয়েছে। প্রথমে বিরিয়ানিতে ছিল শুধু মাংস পর্তুগিজরা এদেশে আলু আমদানি করে। আলু উৎপাদন হতে থাকলে বাড়তি উপাদান হিসেবে আলু যুক্ত হয় বিরিয়ানিতে। মুঘলরা যে বিরিয়ানি খেত তা ছিল দোগাশা। মুতাজানের ভিত্তিও চাল এবং মাংস তবে তা ছিল খানিকটা মিষ্টি। জর্দা মেশানো হতো বলে তা ছিল রঙিন।

চনরিওয়ালা:
ঢাকা ও আশেপাশের অঞ্চলে সাধারণত মাছি তাড়াবার জন্য এক ধরনের তালের পাখা বা চামর (চওনরি) ব্যবহৃত হতো। যারা এই পাখা বা চামর বানাতো তাদের বলা হতো চনরিওয়ালা। এরা সাধারণত ছিল মুসলমান সম্প্রদায়ের লোক। উনিশ শতকের শেষের দিকে ঢাকা থেকে এই পেশা বিলুপ্ত হয়ে যায়।

চিকনদোজ:
চিকনদোজ ছিল একটি শৈল্পিক পেশা। মসলিনের চাহিদা যতদিন ছিল ততদিন চিকনদোজরাও ছিলেন। মসলিনের সুতা দিয়ে যারা নকশা তুলতেন তাদেরকে বলা হতো চিকনদোজ। তখনকার সময়ে মহিলা -পুরুষ উভয়েই এ কাজ করতেন। মসলিনের চাহিদা ও ব্যবহার কমে যাওয়ার সাথে সাথে হারিয়ে যায় এ পেশা।

ছাপড়বন্দ:
ছাপরবন্দ পেশাটি অনেকটা ঘরামী পেশার মতোই ছিল। উনিশ শতকের শেষার্ধে ঢাকার অধিকাংশ বাড়ি ছিল কুঁড়েঘর। কুঁড়েঘর তৈরির জন্য গরমের সময় ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বসতো কুঁড়েঘর তৈরির উপকরণের বাজার যাকে বলা হতো ঘরকাচি মহল। যারা কুঁড়েঘর তৈরি করতো ঢাকায় এদের বলা হতো ছাপড়বন্দ, গ্রামে অবশ্য এদের ছায়াল নামে ডাকা হয়। ইট-পাথরের ঢাকার বুকে কুঁড়েঘর বিলুপ্তির সাথে সাথে হারিয়ে যায় এ পেশাটিও।

ছিপিগর:
ঢাকা ছিল বস্ত্র বয়নের জন্য বিখ্যাত একটি কেন্দ্র। একেক ধরনের বস্ত্র বয়নের জন্য প্রয়োজন ছিল একেক ধরনের কর্ম বিন্যাস। এমন এক ধরনের পেশা ছিল, মসলিনে নকশা তোলার আগে নকশার ছাপ দেওয়া। যারা এ কাজ করতো তাদের বলা হতো ছিপিগর। প্রধানত এ কাজটি মেয়ে কারিগরেরাই করতেন। পুরুষ কারিগরেরা এ কাজকে তাচ্ছিল্যের সাথে দেখতেন বা করতে চাইতেন না।

তাম্বুলি:
ইতিহাসবিদ টেইলর ১৮৪০ সালে তার লেখায় উল্লেখ করেছিলেন, তাম্বুলিরা প্রধানত পান-সুপারী ও অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য বিক্রি করতেন। ১৮৮০ সালের দিকে আরেক ইতিহাসবিদ ওয়াইজ ঢাকায় ৫০ ঘর তাম্বুলির বসবাসের কথা উল্লেখ করেন। ঢাকায় আবার যারা খিলিপান বিক্রি করতেন তাদের বলা হতো খিলিওয়ালা। বর্তমানে পান-সুপারী বিক্রির দোকান থাকলেও তাম্বুলি নামটা অপ্রচলিত হয়ে পড়েছে।

তারওয়ালা:
সঙ্গীতের কিছু বাদ্যযন্ত্র যেমন বেহালা অথবা সারেঙ্গীতে তার হিসেবে ব্যবহার করা হতো ছাগল ও ভেড়ার অন্ত্র। অন্ত্রগুলো প্রক্রিয়াজাত করে এগুলো দিয়ে যারা এ যন্ত্রগুলোর তার তৈরি করতেন এদের বলা হতো তারওয়ালা। তারওয়ালারা মূলত মুসলমান সম্প্রদায়ের ছিলেন বলে সূত্র থেকে তথ্য পাওয়া যায়।

দোসাদ:
উনিশ শতকেও ঢাকায় প্রায় বিশঘর দোসাদ ছিলেন বলে জানা যায়। এখন অবশ্য আর নেই। দোসাদরা আধা উপজাতীয় বলে ইতিহাসবিদ ওয়াইজ মন্তব্য করেছেন। ঢাকায় এরা গৃহ পরিচারক, কুলি বা পাংখা কুলির কাজ করতেন। তাদের সবগুলো কাজ বিলুপ্ত না হলেও নামটি একেবারেই অপ্রচলিত হয়ে পড়েছে।

নারদিয়া:
এ পেশার উদ্ভব হয়েছে মুঘল আমলে, যখন মসলিনের উদ্ভব হয়। মসলিন তৈরি হয় গিয়ে মাড় দেওয়ার পর পাঠানো হতো এক শ্রেণির কারিগরের কাছে। এদের কাজ ছিল কাপড়ের আলগা সূতা সাফ করে বস্ত্রটিকে পরিপাটি করা। লতার কাঁটা দিয়ে যারা এ কাজটি করতেন তাদের বলা হতো নারদিয়া। মসলিনের ব্যবহার কমে যাওয়ার সাথে সাথে তারাও বিলুপ্ত হয়েছে পেশাজীবীর তালিকা থেকে।

নালবন্দ:
উনিশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে ঢাকায় ঘোড়ার বেশ প্রচলন ছিল। ঘোড়ার গাড়ির উদ্ভব ও বিকাশই ছিল এর মূল কারণ। ঘোড়া এবং ঘোড়ার গাড়িকে কেন্দ্র করে সৃষ্টি হয়েছিল নতুন এই পেশার। এদের কাজ ছিল ঘোড়ার পায়ে নাল মারা। এ পেশার সাথে নিযুক্ত শ্রমজীবী মানুষদের বলা হতো নালবন্দ। বর্তমান ঢাকায় তেমন ঘোড়া ও ঘোড়ার গাড়ি না থাকায় পেশাটিও বিস্মৃত হয়ে গিয়েছে।

সায়কালগার:
ধাতব দ্রব্যসামগ্রী তৈরি ও এ সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত ছিল এ পেশাজীবীরা। এটি প্রাচীন পেশা, কেননা সে সময় যুদ্ধের সরঞ্জামের জন্য এটা আবশ্যকীয় ছিল। তারা নিজের কর্মপদ্ধতি গোপন রাখতো এবং ঘরেই কাজ করত। ইস্পাত থেকে সারাংশ বের করা, চকচকে করা, উপাদান ব্যবহার করা ও বন্দুকের নলে ময়ূরের মতো রং করা সবই তাদের কাজ ছিল; কিন্তু তাদের আরেকটি বড় কাজ ছিল সাধারণ লোহা থেকে ইস্পাত তৈরি করা। অধিকন্তু তারা খঞ্জর, বর্শার ফলক, তলোয়ারের বাঁট, কাটারি তৈরি করতো।

বিদরি সাজ:
এটি একটি শৈল্পিক পেশা ছিল। ধাতুর ওপরে সুক্ষ্ম কাজকে বলা হতো বিদরির কাজ। এই কাজে দক্ষ পেশাজীবীদের বলা হতো বিদরি সাজ। বৃটিশ আমলে ঢাকায় এই পেশার বেশ কদর ছিল। জেমস ওয়াইজের বর্ণনায় এর বিশদ বর্ণনা আছে। জেমস ওয়াইজের বর্ণনানুযায়ী, হুঁকাদান, খাটের পায়া, পানদান চিলমচি, কড়াই- এসবের ওপর সুন্দর বিদরির কাজ হয়। এটা ছিল বংশপরম্পরায় চালু কাজ। এখন তেমনভাবে এ কারিগরদের দেখা যায় না।

বাজুনিয়া:
এরা ছিল সংগীতজ্ঞ সম্প্রদায়। গান-বাজনার পেশায় নিয়োজিত ছিল এ সম্প্রদায়ের লোকেরা। এদের সামাজিক মর্যাদা কম ছিল। এদের দলে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরাও অনর্ভুক্ত হয়ে নৃত্য পরিবেশন করতো। বাজুনিয়াদের সাধারণ বাদ্যযন্ত্রের মধ্যে ছিল সানাই, তবলা, ঝনঝনা, মঞ্জুরী ও নাকাড়া প্রভৃতি। এদের দলে বাইজিরাও অন্তর্ভুক্ত হয়ে গান করতো। ১৮৩৮ খ্রিস্টাব্দের লোক গণনা অনুযায়ী মুসলিম মহিলা বাদ্যকরদের পরিচিতি দোমনী নামে। বর্তমানে সঙ্গীতের শিল্পী, বাদক এবং নৃত্যশিল্পী থাকলেও পেশার নামটি হারিয়ে গেছে আমাদের মধ্য থেকে।

শিশাগর:
জেমস ওয়াইজের বর্ণনায় অনুযায়ী, পুরনো শিশি-বোতল, চিমনি ইত্যাদি কিনে নতুন করে সেগুলো বানানোর পর ফুঁ দিয়ে সেগুলোকে আকৃতি দিতো তারা। পদ্ধতি সেকেলে হওয়ায় সামগ্রীগুলো ছিল বুদবুুদে ভরা ভঙ্গুর। তবু এদের তৈরি জিনিসের চাহিদা ছিল খুব, বিশেষ করে দুর্গাপূজার সময়। লোহার একটি নলের মাথা গলানো কাচ নিয়ে তা বারবার ফুঁ দিয়ে এবং ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ইচ্ছামতো যেকোনো আকারের জিনিস বানাতো এরা। ডান হাতে একটি লোহার চিমটা ধরে আর বাঁ হাতে লোহার নল ধরে এরা জিনিসের বিভিন্ন আকৃতি দিতো। উনিশ শতকের ষাটের দশকে জেমস ওয়াইজ ঢাকার সিভিল সার্জন থাকাকালে এই তথ্য সংগ্রহ করেন। এরা ছিল মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ।

বহুরূপীয়া:
এককালে ভাঁড় বা সঙ সেজে, নকল দাড়ি-গোঁফ লাগিয়ে মানুষকে আনন্দ দেওয়ার কাজকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেছিল কিছু লোক। এই পেশা মুঘল যুগেও প্রচলিত থাকার কথা অনুমান করা চলে, যেহেতু বৃটিশ আমলের প্রথম ভাগেও এই পেশার সন্ধান মেলে। বহুরূপীরা বিভিন্ন পৌরাণিক ও লৌকিক চরিত্রে সেজে, নেচে-গেয়ে, গলার স্বর পরিবর্তন করে মানুষকে আনন্দ দিতো।

লোহার:
তিন ধরনের লোহারের উল্লেখ পাওয়া যায়। এদের মধ্যে প্রথম দলে ছিল আরবীয় অনুকরণে তালা প্রস্তুতকারী হিন্দু সম্প্রদায়ভুক্ত লোকেরা, যারা পরবর্তীতে দা’সহ কৃষি যন্ত্র তৈরি করতো। দ্বিতীয় দলে ছিল মুঙ্গেরী সম্প্রদায়ের মানুষ, যারা নাল ও বইল গাড়ির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তৈরি করতো। তৃতীয় ধরনের লোহাররা গাড়িখানায় কাজ করতো ও ঘোড়াগাড়ির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তৈরি করতো। এরা ছিল মুসলমান। এরা বারুদ ও সেকেলে পদ্ধতিতে বন্দুকের গুলি বানাতো এবং একই সঙ্গে বন্দুক নির্মাতা ও কাঠমিস্ত্রি।

পনিরওয়ালা:
উনিশ শতকেও ঢাকার পনির বিখ্যাত ছিল। ঢাকা ও ঢাকার আশপাশে কোথাও পনির তৈরি না হলেও হিন্দু ও মুসলমান পনির সরবরাহকারী অথবা কারিগররা থাকতেন শহরেই। ওয়াইজের বর্ণনা অনুযায়ী, পনির তৈরি ও খাওয়া দুটোতেই অংশ নিতো মুসলিম সম্প্রদায়, তখন গরুর দুধের পনিরের নাম গাইয়া বা দলামা, আর মোষের দুধের পনিরের নাম ছিল ভাঁয়সা। বর্তমানে পনির আছে কিন্তু এ ব্যবসা চলে গেছে বড় ব্যবসায়ীদের হাতে।

নানবাই
খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুতের সাথে সম্পৃক্ত ছিল এ পেশার লোকেরা।বিভিন্ন ধরনের রুটি (শিবুমাল, নানখাতাই, বাকরখানি, পাঞ্জাকাশ, পরোটা প্রভৃতি), এমনকি পিঠাও বানাত এরা। মুখ্যত মুসলিম সম্প্রদায়ের এসব রুটিওয়ালা সমুচা এবং ইউরোপীয় কায়দার বিস্কুটও বানাতো। বেকারী ও ফ্যাক্টরির ক্রমবিকশে এ পেশা বিলুপ্ত হয়েছে।

গান্ধী:
সুগন্ধি দ্রব্য প্রস্তুত করতো যে পেশার মানুষ, তারা পরিচিত ছিল গান্ধী নামে। হাকিম হাবিবুর রহমান উল্লেখ করেছেন যে ঢাকায় এককালে অনেক গান্ধী পরিবারের বাস ছিল এবং চুড়িহাট্টা মহল্লার গান্ধীগলি তাদেরই স্মৃতি বহন করছে। সে সময়ই এটি ছিল একটি প্রায় বিলুপ্ত পেশা। এই পেশার অল্প কিছু লোক আগর-সুগন্ধিযুক্ত বাতি তৈরিতে নিয়োজিত হয়েছিল।

পাঙ্খাওয়ালা:
বৈদ্যুতিক পাখার প্রচলনের আগে এই পেশার খুব কদর ছিল। হাতপাখা প্রস্তুতকারী ওই পেশাজীবীদের বড় অংশ মুসলিম সম্প্রদায়ের, তবে হিন্দু বৈরাগীরাও কেউ কেউ পাখা তৈরি করতো বলে ইতিহাসবিদ জেমস ওয়াইজ উল্লেখ করেছেন। তাদের তৈরি করা পাখায় দেব-দেবীর ছবি থাকতো। বড় আকারের তালপাখার নাম ছিল আরানি, ছোটগুলোর নাম আরবাকি। বর্তমানে এ পেশাটি কুটির শিল্পের হাতে চলে গেছে ফলে আলদা করে আর পাঙ্খাওয়ালাদের দেখা যায় না।

ভাতিয়ারা:
ভাত থেকে সম্ভবত ভাটিয়ারা বা ভাতিয়ারা শব্দটি এসেছে। সরাইখানা বা ভোজনালয় পরিচালনাকারীকেও অনেকে এই নামে অভিহিত করেছেন। এরা মুসলিম সম্প্রদায়ের লোক ছিল এবং তারা তামাকও বিক্রি করতো। ইতিহাসবিদ জেমস ওয়াইজের মতে, এরা ছিল মুদি দোকানদার বা ভোজনালয়ের ব্যবস্থাপক এবং দরিদ্রদের মধ্যে ভাটিয়ারা জনপ্রিয় ছিল। বর্তমানে হোটেল ও রেস্টুরেন্ট এর উন্নয়নে এ পেশাটির নাম আমরা বিস্মৃত হয়েছি।

চামড়া ফরোশ:
চামড়ার কারবারি এ সম্প্রদায় সনাতন পদ্ধতিতে চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতো। জেমস ওয়াইজ এর ধারণায়, বাজার মন্দা থাকার সময় এরা ভিস্তি বা কুলির কাজও করতো। রিজলে এই পেশাজীবীদের মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত এবং কুটি বলে উল্লেখ করেছেন। হাজারীবাগসহ ঢাকার অন্যান্য অঞ্চলে চামড়া শিল্পের বিকাশ এ পেশাটির বৈশিষ্ট্য ও নাম পনিবর্তন করেছে।

সদাকার:
আঠারো-উনিশ শতকে ঢাকার মুসলমান সম্প্রদায়ের লোকজন সাধারণত রূপার আংটি পড়তেন। পাথর বসানোর রূপার আংটি ছিল জনপ্রিয়। ধর্মীয় বিধিনিষেধের কারণে স্বর্ণের তৈরি আংটি এই সম্প্রদায়ের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল না। যেসব মুসলমান কারিগর এই আংটি তৈরি করতেন এদেরকে বলা হতো সাদাকার। রূপার আংটি এখনও বানানো হয় কিন্তু পেশার নামটি বিস্মৃত হয়ে গেছে।

শাঁখারি:
এটি ঢাকার একটি পুরনো পেশাজীবী শ্রেণি, যারা পুরোপুরি বিলুপ্ত হয়েছে বলা যাবে না। কারণ শাঁখা ব্যবহারের ধর্মীয় ও সামাজিক গুরুত্ব এখনও আছে। শাঁখা তৈরিতে এরা নিয়োজিত ছিল। আমদানি করা শঙ্খ দিয়ে এদের শাঁখা বানানোর পদ্ধতিসহ বিশদ বিবরণ পাই জেমস ওয়াইজের বর্ণনায়। তাঁর বর্ণনায়, শাঁখার কারণে ঢাকার শাঁখারিদের নামডাক ছিল এবং ৮৫৩ জন শাঁখারির বাস ছিল ঢাকায়।

গন্ধবণিক:
এরা ছিল মসলা বিক্রেতা। উনিশ শতকে মসলা উৎপাদনের স্থান থেকে সরাসরি মসলা আমদানি করে বিক্রি করা ছাড়াও হিন্দু ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের জন্য প্রয়োজনীয় চন্দন কাঠ ও মসলা এরা বিক্রি করতো। কিছু রাসায়নিক দ্রব্য, ওষুধ, আফিম, ভাং, চরস প্রভৃতি নেশাদ্রব্যও তারা বিক্রি করতো। জেমস ওয়াইজ তাঁর সময়ে ঢাকায় দেড় থেকে দুই শত গন্ধবণিক পরিবার এবং প্রায় এক হাজার গন্ধবণিক দেখেছেন।

গোপগোয়ালা:
ঢাকায় এককালে দুধ ও দুগ্ধজাত পণ্য উৎপাদনকারী গোয়ালারা যথেষ্ট সংখ্যায় বাস করতো এবং এদের মধ্যে শ্রেণিবিভাজনও ছিল। পূর্ববঙ্গে এরা গোপগোয়ালা নামে পরিচিত ছিল। এসব গোয়ালা কখনো কখনো মোষ পালন করলেও প্রধানত গরু পালত বা দুধ কিনে দই, ঘি, ক্ষীরশা, মাঠা, মাখন বানিয়ে বিক্রি করতো। অনেকেই কৃষিকাজের পাশাপাশি দুধের কারবার করতো। ঢাকার রথখোলায় বিশ শতকেও বড় দুধের আড়ত ছিল। বনগ্রাম-টিপু সুলতান রোডের পশ্চিমে গোয়ালঘাট,রায়সাহেব বাজারের পেছনের গোয়ালনগর গোয়ালাদের স্মৃতি বহন করে চলেছে। এছাড়া, কলতাবাজার, ফরিদাবাদ, গেণ্ডারিয়া, শিংটোলা এলাকায় অনেক গোয়ালা পরিবারের বাস বিশ শতকের প্রথমার্ধেও ছিল।

কাহার:
এরা ছিল পালকিবাহক। ঢাকায় ডুলি ও কাহার নামের পালকিবাহকরা উনিশ শতক পর্যন্ত ভালোভাবেই টিকে ছিল, এমনকি বিশ শতকেও পালকির চল এ এলাকায় ছিল। প্রধানত হিন্দু তবে অংশত মুসলিম সম্প্রদায়ের কাহারদের সন্ধান মেলে। অত্যন্ত শ্রমসাধ্য এ পেশার মানুষদের সামাজিক মর্যাদা তেমন ছিল না। পালকি পুরোপুরি বিদায় নেওয়ায় এ পেশাজীবীরাও সম্পূর্ণ বিলুপ্ত।

নট বা নর্তক:
নৃত্যকলায় পারদর্শী পুরুষরা এই নামে পরিচিত ছিল। সে সময় প্রকাশ্যে নারী অর্থাৎ নর্তকীকে মঞ্চে পাওয়া কঠিন ছিল, তখন নারীর সাজে নট বা নর্তকরা নাচতো। কোম্পানি শাসন শুরু হওয়ার আগে থেকেই নট বা নর্তকদের আবির্ভাব ঢাকায় ঘটেছিল বলে জনশ্রুতিকে নির্ভর করে জেমস ওয়াইজ মত দিয়েছেন।

তথ্যসূত্র:
ক। বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া।
খ। নোটস অন রেসেস, কাস্টস অ্যান্ড ট্রেডস অব ইস্টার্ন বেঙ্গল, জেমস ওয়াইজ।
গ। ঢাকা: স্মৃতি-বিস্মৃতির নগরী: মুনতাসীর মামুন।
ঘ। কালি ও কলম

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর















error: Content is protected !!