1. niblkvzwjcfd@inbox.ru : 12asd www.sristy.net :
  2. admin@sristy.net : admin :
  3. ERHRC23wddsf@gmail.com : AdminZaxHH34 :
  4. readzituckda@yahoo.com : alexandriablanch :
  5. jimgann@gmx.com : alexiscastiglia :
  6. marybetsuto@gmx.com : alfiedeville3 :
  7. krapnikovbogdan@gmail.com : allisoncraine72 :
  8. denzduquet@gmx.com : anastasiablau :
  9. xaviersecrest7784@hidebox.org : andreasarmstead :
  10. miswe@gmx.com : angelika3897 :
  11. vickymunro@hidebox.org : apriljoy55956 :
  12. atcurtita1982@coffeejeans.com.ua : archievelazquez :
  13. orsoncopseykwb@mail.com : armoale :
  14. aurelio.trujillo@kinomaxru.ru : aurelio66o :
  15. aconinab@yahoo.com : barrykeartland :
  16. imogenelee@midmico.com : basil17724819 :
  17. marianekoczu@gmx.com : beaudarrow2 :
  18. limaranna@yahoo.com : billarhonda :
  19. ivanletvinko1992@gmail.com : bradlyflanagan :
  20. vieconkasu1981@aabastion.com.ua : calebdenson :
  21. darwinlucas@varsidesk.com : cecilensu1 :
  22. ioaugspurge@gmx.com : celinapersinger :
  23. felisschak@gmx.com : chadwickclemente :
  24. marvistlou@gmx.com : charastillwell7 :
  25. imogthore@gmx.com : charityg02 :
  26. ovalenci@gmx.com : chris08v415816 :
  27. porskr@gmx.com : christiangiven7 :
  28. andreasbessie@petsplit.com : christimcleish3 :
  29. ruthstockm@gmx.com : chuechols79682 :
  30. tradamateqkala832@yahoo.com : cindicharbonneau :
  31. naja.bendtsen.1997@web.de : clariceaiello8 :
  32. wiboubalia3765@inbox.ru : clevelandgratwic :
  33. fredericla@gmx.com : clevelandhayter :
  34. moricigrumant@outlook.com : clobwik :
  35. jeanicmassar@gmx.com : collincruickshan :
  36. jonikug@gmx.com : cyrilharrel697 :
  37. reomanbuper@yahoo.com : danielageorgina :
  38. diacheckficmu@yahoo.com : demetriuschester :
  39. jetttardent@1secmail.com : doloreshalligan :
  40. pogewgep@yandex.ru : dominikbayldon :
  41. carolygall@gmx.com : dorris06k07965 :
  42. dorreineck@gmx.com : dougz6629398122 :
  43. thomaspoqu@gmx.com : elisax67493 :
  44. darrhafle@gmx.com : elissa0159 :
  45. glindmartic@gmx.com : epifaniadiamond :
  46. cyswa@gmx.com : ericacani548345 :
  47. holshinau@gmx.com : eusebiaavera :
  48. evicop@gmx.com : fausto37r75774 :
  49. jonepooleys@outlook.com : favvari :
  50. soledmacquarr@gmx.com : fawn33p8526 :
  51. keyssin@gmx.com : felixfetty :
  52. viepourfitip1983@coffeejeans.com.ua : flor113329777 :
  53. eboneuhar@gmx.com : frankiekahl35 :
  54. leatmana@gmx.com : gemmafoley0677 :
  55. iolanthnitkowsk@gmx.com : grantmannix200 :
  56. stanformatt@gmx.com : hannahroybal :
  57. alcervero1977@coffeejeans.com.ua : harrylarocca51 :
  58. gamagru@gmx.com : iolagill498824 :
  59. robiniccol@gmx.com : jefferystones2 :
  60. rodrickschreiner9984@safeemail.xyz : jestine1603 :
  61. leontinsticke@gmx.com : joeykozak322122 :
  62. timotcwalin@gmx.com : joleneangeles :
  63. jazaloud@gmx.com : jsvhalina0 :
  64. margotmaybell@kogobee.com : julissahyatt69 :
  65. elliottnewman4891@kittenemail.com : kaylenelombardo :
  66. charleysabo5394@hidebox.org : kelliaguilar942 :
  67. trogn@gmx.com : latoshabarrenger :
  68. latosha_peach@northernpinetreetrust.co.uk : latoshapeach8 :
  69. lauritheriot3@marry.raytoy.com : lauritheriot802 :
  70. gloriwu@gmx.com : leonor7342 :
  71. chrishal@gmx.com : lessierra6297 :
  72. paulettoschuppjedbra@gmail.com : levix80850161 :
  73. inpatalve@yahoo.com : lilianachambliss :
  74. chebotarenko.2022@mail.ru : linomcdavid76 :
  75. cipletede@yahoo.com : lorrichumleigh :
  76. csten@gmx.com : louissoubeiran3 :
  77. bremanocch@gmx.com : lourife80058359 :
  78. euphemisnid@gmx.com : lucielaidley891 :
  79. arrun@gmx.com : madiebellasis56 :
  80. sharilyurspr@gmx.com : malissak49 :
  81. lescutasoft@yahoo.com : malloryworgan45 :
  82. vinnisapa@gmx.com : mariloubriones :
  83. antoineeaston6275@hidebox.org : mauriciododds43 :
  84. notforalluse1@gmail.com : md Shopon islam :
  85. soninorr@gmx.com : merryschaefer :
  86. zeravemn7795@inbox.ru : milesrimmer16 :
  87. trazcoundiothe@yahoo.com : molliehoy920286 :
  88. tilpenttrafal@yahoo.com : monroefoust90 :
  89. derkar@gmx.com : murielelias102 :
  90. medpern@gmx.com : myracory91 :
  91. jorva@gmx.com : niamhdement0 :
  92. chawilf@gmx.com : philomenalogan4 :
  93. cheliheami1131@inbox.ru : porfirio55k :
  94. theobalnewna@gmx.com : qgrkimberly :
  95. esterntwandablette@gmail.com : rory416241 :
  96. lanerep@gmx.com : roseannebou :
  97. debrooz@gmx.com : rudygaither1427 :
  98. smtpfox-opnkm@hetmobielecafe.be : rxrhack1337 :
  99. kitcud@gmx.com : sandymuecke :
  100. shahindom76@gmail.com : Shahin :
  101. vegantato@yahoo.com : shanibeer61077 :
  102. ariadcamer@gmx.com : shastafoss1221 :
  103. joytr@gmx.com : shelleytrethowan :
  104. enedinrodge@gmx.com : sherylm662 :
  105. tmatushevs@gmx.com : sonjawhittell0 :
  106. donour@gmx.com : stantonfitzgibbo :
  107. lescriven@gmx.com : stephanielewers :
  108. karla.nguyen.1993@web.de : tandymccartney :
  109. laura.dalgaard.1984@web.de : taniabernal84 :
  110. test10581124@inboxmail.imailfree.cc : test10581124 :
  111. test18828469@inboxmail.imailfree.cc : test18828469 :
  112. test29683271@mail.imailfree.cc : test29683271 :
  113. test6956998@mail.imailfree.cc : test6956998 :
  114. onpilemo@yahoo.com : tiffanyhueber4 :
  115. jaylkozeya@gmx.com : toneyspann6 :
  116. flp2k15e2@wuuvo.com : user_eignkp :
  117. viszczeblew@gmx.com : vilmar120074004 :
  118. medewal@gmx.com : xehnydia2599 :
সমৃদ্ধি ও মডেল বাংলাদেশের রূপকার প্রেসিডেন্ট এরশাদ : সৃস্টি
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সিংড়ায় ব্রিধান-৮৭ চাষে ব‍্যাপক ফলন তাজরুলের খালেদ বিন ওয়ালিদ আলবি ফুল ব্রাইট স্কলার্শীপে ইউনিভার্সিটি অব আরিজোনায় পড়ার সুযোগ পেল ডাচ্-বাংলা ব্যাংক এসএসসি শিক্ষাবৃত্তি ২০২২ সার্কুলার লিংকসহ বিস্তারিত তথ‍্য সুনামগঞ্জে (নিসচার)২৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালি তাহিরপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের নিকট অভিযোগে ট্রাস্ট ম্যানপাওয়ার এন্ড সিকিউরিটি সার্ভিস লিঃএর উদ্যোগে দোয়া মাহফিল নওগাঁয় শিশুকে গলা টিপে হত্যার পর মাটিচাপা, যুবক গ্রেফতার প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক সমাজ মতলব উত্তর শাখার আহবায়ক কমিটি ঘোষণা বালিয়াডাঙ্গীতে ৮০ বছরের বৃদ্ধকে গভীর রাতে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ  উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে মান্দা উপজেলা

সমৃদ্ধি ও মডেল বাংলাদেশের রূপকার প্রেসিডেন্ট এরশাদ

সৃস্টি ডেস্ক :
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৪ জুলাই, ২০২২
  • ৮৭ বার দেখা হয়েছে
সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

প্রাথমিক জীবন ও সামরিক পেশাজীবন:১৯৩০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি তারিখে তিনি দিনহাটা শহর, কোচবিহার জেলা, জলপাইগুড়ি বিভাগ, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য, ভারতে জন্মগ্রহণ করেন।[৭] তিনি রংপুর জেলায় শিক্ষাগ্রহণ করেন এবং ১৯৫০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন।
১৯৫১ সালে তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অফিসার্স ট্রেনিং স্কুলে (কোহাটে অবস্থিত) যোগ দেন এবং ১৯৫২ সালে কমিশনপ্রাপ্ত হন। ১৯৬০ – ১৯৬২ সালে তিনি চট্টগ্রাম ইষ্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের কেন্দ্রে অ্যাডজুট্যান্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ১৯৬৭ সালে তিনি কোয়েটার স্টাফ কলেজ থেকে স্টাফ কোর্স সম্পন্ন করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি শিয়ালকোটে ৫৪ ব্রিগেডের মেজর ছিলেন। ১৯৬৯ সালে লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে পদোন্নতি লাভের পর ১৯৬৯ – ১৯৭০ সালে ৩য় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট এর অধিনায়ক ও ১৯৭১ – ১৯৭২ সালে ৭ম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট এর অধিনায়ক হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা:১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সময় এরশাদ ছুটিতে রংপুর ছিলেন। কিন্তু, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ না করে তিনি পাকিস্তান চলে যান। পাকিস্তান থেকে আটকে পড়া বাঙালিরা যখন ১৯৭৩ সালে দেশে ফিরে আসে তখন তিনিও প্রত্যাবর্তন করেন। শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুর সময় আগ্রা ক্যান্টনমেন্টে জাতীয় প্রতিরক্ষা কোর্সে অংশগ্রহণ করেন।
বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে এরশাদ:পাকিস্তান থেকে দেশে ফেরার পর ১৯৭৩ সালে তাকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে অ্যাডজুটেন্ট জেনারেল হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। ১২ ডিসেম্বর ১৯৭৩ সালে তিনি কর্নেল ও ১৯৭৫ সালের জুন মাসে ব্রিগেডিয়ার পদে পদোন্নতি পান। ১৯৭৫ সালের ২৪ আগস্ট ভারতে প্রশিক্ষণরত অবস্থায় তিনি মেজর জেনারেল হিসেবে পদোন্নতি পান ও উপ সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ পান। ১৫ অগাস্ট সামরিক অভ্যুত্থানের পর এরশাদ বাংলাদেশের দিল্লি মিশনের মাধ্যমে দেশে ফেরার আকাঙ্ক্ষা জানিয়ে বার্তা পাঠান। ১৯৭৮ সালে তাকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল হিসেবে পদোন্নতি দিয়েছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান এবং এরশাদ একই বছরের ডিসেম্বরে সেনাপ্রধানের দায়িত্ব বুঝে নেন।

সামরিক অভ্যুত্থান ও রাষ্ট্রপতিত্ব:৩০ মে ১৯৮১ সালে রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান নিহত হবার পর, এরশাদের রাজনৈতিক অভিলাষ প্রকাশ হয়ে পড়ে। ২৪ মার্চ ১৯৮২ সালে এরশাদ রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারের নির্বাচিত সরকারকে হটিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন। ১১ ডিসেম্বর ১৯৮৩ সাল নাগাদ তিনি প্রধান সামরিক প্রশাসক হিসেবে দেশ শাসন করেন। ঐ দিন তিনি দেশের রাষ্ট্র ক্ষমতা রাষ্ট্রপতি বিচারপতি এ.এফ.এম আহসানুদ্দিন চৌধুরীর কাছ থেকে নিজের অধিকারে নেন। এরশাদ দেশে উপজেলা পদ্ধতি চালু করেন এবং ১৯৮৫ সালে প্রথম উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৮৬ সালে তিনি জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠা করেন এবং এই দলের মনোনয়ন নিয়ে ১৯৮৬ সালে পাঁচ বছরের জন্য দেশের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও জামায়াত এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে যদিও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল এই নির্বাচন বয়কট করে। সাধারণ নির্বাচনে তার দল সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন লাভ করে। বিরোধী দলের আন্দোলনের মুখে রাষ্ট্রপতি ৭ ডিসেম্বর ১৯৮৭ সালে এই সংসদ বাতিল করেন। ১৯৮৮ সালের সাধারণ নির্বাচন সকল দল বয়কট করে। এরশাদের স্বৈরাচারের বিরূদ্ধে দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে সকল বিরোধী দল সম্মিলিতভাবে আন্দোলনের মাধ্যমে তাকে ৬ ডিসেম্বর ১৯৯০ সালে ক্ষমতা থেকে অপসারণ করে।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, ১৯৮৬:
রাষ্ট্রপতি নির্বাচন, ১৯৮৬ (অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ ১৫ অক্টোবর,১৯৮৬) জয়লাভ করেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। এ নির্বাচনে ১৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। বাছাই –এ কোন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাদ না পড়ায় বৈধ প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়ায় ১৬ জন। ৪জন প্রার্থী প্রার্থিতা প্রত্যাহার করায় সর্বশেষ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ১২ জন ছিল।১৯৮৬ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ১২জন প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেনঃ ১। জনাব অলিউল ইসলাম চৌধুরী (সুক্কু মিয়া) ২। আলহাজ্ব মাওলানা খায়রুল ইসলাম যশোরী ৩। আলহাজ্ব মেজর (অব) আফসার উদ্দিন ৪। জনাব মুহাম্মদ আনছার আলী ৫। জনাব মওলানা মোহাম্মদুল্লাহ (হাফেজ্জী হুজুর) ৬। জনাব মোহাম্মদ খলিলুর রহমান মজুমদার ৭। জনাব মোঃ আব্দুস সামাদ ৮। জনাব মোঃ জহির খান ৯। লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অবঃ) সৈয়দ ফারুক রহমান ১০। সৈয়দ মুনিরুল হুদা চৌধুরী ১১। স্কোঃ লিঃ (অবঃ) মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী ১২। জনাব হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ।

গুরুত্বপুর্ণ অবদান:শাসনকালীন সাফল্য থানা পর্যায়ে দেশব্যাপী উপজেলা স্থানীয় সরকার পদ্ধতি প্রবর্তনের জন্যই মুখ্যত এরশাদ আমল (১৯৮২-৯০) স্মরণীয় হয়ে আছে। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসকেরা মূলত আইনশ্ঙ্খৃলা রক্ষার জন্য পুলিশি কেন্দ্র হিসেবে থানাগুলোকে সৃষ্টি করে। ইউনিয়ন পরিষদগুলোর উন্নয়ন কার্যক্রম সমন্বয় ও তত্ত্বাবধানের জন্য ১৯৫৯ সালে প্রথমবারের মতো থানা পর্যায়ে একটি স্থানীয় সরকার ইউনিট গঠন করা হয়। প্রেসিডেন্ট এরশাদ স্থানীয় তৃণমূল পর্যায়ে জনগণের অনুকূলে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা কার্যকরভাবে বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে প্রশাসন ও পরিকল্পনায় তাদের অংশগ্রহণের উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। তাই উপজেলাগুলোকে উন্নয়ন প্রশাসনের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে উন্নীত করার মাধ্যমে বিকেন্দ্রীকরণের এই ধারণাকে বাস্তব রূপ দেওয়া হয়। এই উদ্দেশ্য সামনে রেখে একটি আইনি কাঠামো দাঁড় করাতে ১৯৮২ সালে স্থানীয় সরকার (উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ পুনর্গঠন) অধ্যাদেশ জারি করা হয়। এরপর ১৯৮৪ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১০টি ধাপে ৪৬০টি থানাকে উপজেলায় উন্নীত করা হয়।

এ আইনের আওতায় উপজেলা পরিষদগুলোকে একটি কর্পোরেট সংস্থা হিসেবে গড়ে তোলার প্রয়াস চালানো হয়, যাতে প্রতিনিধিত্বমূলক সদস্য ছাড়াও পেশাজীবী ও প্রায়োগিক কর্মকর্তারা অন্তর্ভুক্ত ছিল। চেয়ারম্যানরা ছিলেন পরিষদের প্রধান নির্বাহী এবং তাঁরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হতেন। এর বাইরে উপজেলা পরিষদের সদস্য হিসেবে ছিলেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা, উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির সভাপতি, তিনজন মহিলা সদস্য, একজন মনোনীত সদস্য এবং সরকারি সদস্যবৃন্দ। উপজেলা পরিষদসমূহের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যানবৃন্দ ১৯৮৫ সালের ২৫ জানুয়ারি প্রথমবারের মতো দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তাঁর শাসনকালে জেলা পরিষদসমূহ সক্রিয় ও কার্যকর করার জন্যও এরশাদকে সাধুবাদ দেওয়া হয়।

এরশাদের আরেকটি বড় সাফল্য ছিল দক্ষিণ এশীয় সহযোগীতা সংস্থা (সার্ক) গঠনে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের উদ্যোগকে সামনে এগিয়ে নেওয়া, ভারতীয় উপমহাদেশের সাতটি রাষ্ট্র যার সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। ১৯৭৯ সাল থেকে চার বছরের প্রস্ত্ততিমূলক কাজ শেষে ১৯৮৩ সালের আগস্ট মাসে অনুষ্ঠিত দক্ষিন এশীয় দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলনে এ লক্ষ্যে একটি সমন্বিত কর্মসূচি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করা হয়। এর দুই বছর পর ১৯৮৫ সালের ৭ ডিসেম্বর প্রেসিডেন্ট এরশাদের আমন্ত্রণে এ অঞ্চলের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানেরা ঢাকায় একটি শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেন। এই প্রথম শীর্ষ সম্মেলনেই দক্ষিণ এশিয়ার নেতারা সার্ক গঠনের ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, যাতে অন্তর্ভুক্ত হয় ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা ও মালদ্বীপ।

প্রেসিডেন্ট এরশাদ রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন শিল্পের বিরাষ্ট্রীয়করণ এবং দেশে ব্যক্তিখাতের বিকাশে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেন। এর অন্তর্ভুক্ত ছিল সরকারি মালিকানাধীন উত্তরা, পুবালী ও রূপালী ব্যাংকের বিরাষ্ট্রীয়করণ। এসময়ে দেশে প্রথমবারের মতো বেশ কয়েকটি বেসরকারি বাণ্যিজ্যিক ব্যাংক ও বীমা কোম্পানিকে কার্যক্রম শুরুর অনুমতি প্রদান করা হয়। দেশের প্রশাসনিক ব্যবস্থা পুনর্গঠন ও সংস্কারেও এরশাদ সরকার বেশ কিছু উদ্যোগ নেয়। মহকুমাগুলোকে জেলায় উন্নীত করার মাধ্যমে দেশে জেলার সংখ্যা ৬৪ করা হয়। এগুলোর অধীনে আবার ন্যস্ত করা হয় ৪৬০টি উপজেলাকে। কেন্দ্রীয় ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণের উদ্দেশ্যে এরশাদ ১৯৮২ সালের ২৮ এপ্রিল একটি প্রশাসনিক পুনর্গঠন ও সংস্কার কমিশন গঠন করেন, যার সুপারিশ অনুযায়ী জনপ্রশাসনকে নতুন করে সাজানো হয়।

একটি সমন্বিত বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসকে প্রায়োগিক পার্থক্যের ভিত্তিতে এরশাদ সরকার ৩০টি ক্যাডারে বিভক্ত করে; সিভিল সার্ভিস ক্যাডারসমূহের গঠন ও দায়িত্ব অনুযায়ী তাদের আনুষ্ঠানিক আকার দেওয়ার লক্ষে ক্যাডার কম্পোজিশন ও নিয়োগ বিধি জারি করা হয়। পাশাপাশি এদের একটি সুশৃঙ্খল কাঠামোর মধ্যে আনার জন্য প্রণীত হয় সরকারি কর্মচারি আচরণ বিধি এবং শৃঙ্খলা ও আপীল বিধি। নারীসমাজের আর্থ-সামাজিক স্বার্থ সমুন্নত রাখতে এরশাদ সরকার ১৯৮৪ সালে একটি পৃথক মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর স্থাপন করে। এরশাদ আমলের একটি উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য ছিল পুলিশসহ বিভিন্ন সিভিল পদে মাত্রাতিরিক্ত সংখ্যক সেনা কর্মকর্তাদের প্রেষণে নিয়োগ। তবে প্রশাসনের আকার কমাতে তিনি বেশ কিছু অপ্রয়োজনীয় দপ্তর বিলোপ করেন এবং অনেক দপ্তর একীভূত করেন। ঢাকার বাইরে হাইকোর্ট বেঞ্চ বসিয়ে এরশাদ উচ্চতর আদালত বিকেন্দ্রীকরণেরও প্রয়াস চালান, কিন্তু বাংলাদেশ সুুপ্রম কোর্টের আপীল বিভাগের রায়ে পরে তা খারিজ হয়ে যায়।

এরশাদ সরকার দেশে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় ভূমি সংস্কারেরও প্রয়াস চালান। এ লক্ষ্যে ১৯৮২ সালে একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি ১৯৮৩ সালের জানুয়ারিতে তার প্রতিবেদন পেশ করে এবং সরকার এই প্রতিবেদনের কয়েকটি সুপারিশ অনুমোদন করে। ১৯৮৩ সালের আগস্ট মাসে ভূমি সংস্কারের জন্য একটি জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটিতে আলোচনা ও প্রদত্ত পরামর্শের ভিত্তিতে ভূমি সংস্কার অধ্যাদেশ ১৯৮৪, ভূমি সংস্কার বিধি ১৯৮৪ এবং কৃষি শ্রম (ন্যূনতম) মজুরি অধ্যাদেশ ১৯৮৪ জারি করা হয়। ভূমি সংস্কার সংক্রান্ত পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়নে ১৯৮৭ সালের মার্চে একটি ক্যাম্পেইন হাতে নেওয়া হয়। এর লক্ষ্য ছিল: ভূমিহীন, প্রায়-ভূমিহীন ও প্রান্তিক চাষীদের মধ্যে খাসজমি বিতরণ; ‘অপারেশন ঠিকানা’ কর্মসূচির আওতায় সরকারি জমিতে ভূমিহীনদের জন্য গুচ্ছ-গ্রাম প্রতিষ্ঠা; বর্গাচাষীদের আইনগত অধিকার প্রদান; অধিকতর উৎপাদনের জন্য পাহাড়ি জমি, মৎস্য ও চিংড়ি চাষের জমির সর্বোত্তম ব্যবহার; পল্লী অঞ্চলের আয় বন্টনে অধিকতর সমতা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে উচ্চতর কৃষি উৎপাদনে অবদান রাখা; গ্রামাঞ্চল থেকে শহরাঞ্চলে অভিবাসন হ্রাসে সহায়তা করা। তবে তাঁর অন্য অনেক উদ্যোগের মতোই ভূমি সংস্কারের উদ্যোগও ব্যর্থতায় পর্যবসিত হয় মূলত আমলাতন্ত্রের অদক্ষতা ও দুর্নীতির কারণে।

১৯৮২ সালে ঘোষিত নতুন শিল্পনীতিকে ব্যক্তিখাতের বিনিয়োগের জন্য আরো উদার করে এরশাদ ১৯৮৬ সালে আরেকটি শিল্পনীতি ঘোষণা করেন। এরশাদের আমলে শিল্পখাতের প্রবৃদ্ধির হার ছিল অত্যন্ত লক্ষণীয়, বিশেষত তৈরি পোশাক খাতসহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের ক্ষেত্রে। তাঁর অর্থনৈতিক কর্মসূচির মূল ভিত্তি ছিল সকল ক্ষেত্রে ব্যক্তিখাতের নেতৃত্বে প্রবৃদ্ধি অর্জন। ব্যক্তিখাতকে শিল্প-বিনিয়োগে সহায়তা দিতে এবং জাতীয় অর্থনীতিতে আরো বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখার সুযোগ করে দিতে এরশাদ ১৯৮৯ সালে একটি বিধিবদ্ধ সংস্থা হিসেবে বিনিয়োগ বোর্ড প্রতিষ্ঠা করেন। দেশের রাষ্ট্রপতিকে বোর্ডের সভাপতি করা হয়, আর এর দৈনন্দিন কার্য-নির্বাহের জন্য গঠন করা হয় একটি নির্বাহী পরিষদ। জনগণের কাছ থেকে কর (সারচার্জ) আদায় করে আর বিশ্ব ব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক সহ দাতাদের কাছ থেকে তহবিল জোগাড়ের লক্ষ্যে যোগাযোগ স্থাপন করে এরশাদই প্রথম যমুনা সেতু নির্মাণের বাস্তব পদক্ষেপ নেন। তাঁর অন্যান্য সৃজনশীল প্রয়াসের মধ্যে ছিল পথশিশুদের প্রয়োজন মেটাতে ‘পথকলি ট্রাস্ট’ গঠন এবং দেশের পরিবেশ বিষয়ক একটি সমন্বিত কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন।বিশেষত উপজেলা পরিষদ প্রতিষ্ঠায় তাঁর ভূমিকার কারণে এরশাদের অনুসারীরা তাঁকে ‘পল্লীবন্ধু’ খেতাবে ভূষিত করেছেন।

৯১-পরবর্তী রাজনৈতিক পেশাজীবন:ক্ষমতা হারানোর পর এরশাদ গ্রেফতার হন এবং ১৯৯৬ খ্রিষ্টাব্দে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না আসা পর্যন্ত কারারুদ্ধ থাকেন। ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি কারাগার থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন এবং রংপুরের পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন। বি.এন.পি সরকার তার বিরুদ্ধে কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে। তার মধ্যে কয়েকটিতে তিনি দোষী সাব্যস্ত হন এবং সাজাপ্রাপ্ত হন। ১৯৯৬ সালের সাধারণ নির্বাচনেও তিনি পাঁচটি আসন থেকে নির্বাচিত হন। ছয় বছর অবরুদ্ধ থাকার পর ৯ জানুয়ারি ১৯৯৭ সালে তিনি জামিনে মুক্তি পান। তার প্রতিষ্ঠিত জাতীয় পার্টি ২০০০ সালে তিনভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে, যার মধ্যে তিনি মূল ধারার চেয়ারম্যান ছিলেন । ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচনে তার সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে এবং তার স্ত্রী রওশন এরশাদ প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা হন।

গ্রেফতার:এরশাদের অপশাসনের বিরুদ্ধে বিরোধী দলগুলোর অবিরাম আন্দোলন চলতে থাকে এবং প্রবল গণঅভ্যুত্থানের মুখে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর তিনি পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। ১৯৯১ সালে জেনারেল এরশাদ গ্রেপ্তার হন এবং তাকে কারাবন্দি করে রাখা হয়।[৮] ১৯৯১ সালের সংসদ নির্বাচনে জেলে অভ্যন্তরীণ থাকা অবস্থায় এরশাদ রংপুরের পাঁচটি আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন। বিএনপি সরকার তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি দুর্নীতি মামলা দায়ের করে এবং কোনো কোনোটিতে দোষী প্রমাণিত হয়ে তিনি কারাদ-ে দ-িত হন। ১৯৯৬-এর সাধারণ নির্বাচনেও এরশাদ সংসদে পাঁচটি আসনে বিজয়ী হন। ছয় বছর জেলে থাকার পর ১৯৯৭ সালের ৯ জানুয়ারি তিনি জামিনে মুক্ত হন। তবে আদালতের রায়ে দ-িত হওয়ার কারণে সংসদে তার আসন বাতিল হয়ে যায়।
ব্যক্তিগত জীবন:এরশাদ ১৯৫৬ সালে রওশন এরশাদকে বিয়ে করেন। রওশন ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে পরপর তিনবার সংসদ সদস্য হন। ২০০৮ নির্বাচনে এরশাদ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোটে যোগ দেন কিন্তু রওশন বিএনপির সাথে যান। ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরে তিনি সংসদের বিরোধী দলের নেত্রীর দায়িত্ব নেন। এরশাদের মৃত্যুর পর, তিনি দলের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি হন। তাদের এক ছেলে রয়েছে – রহগীর আল মাহি শাদ এরশাদ। ২০০০ সালে ১৪ বছর বয়সী এক মেয়েকে অপহরণ করার অভিযোগে শাদ এরশাদকে গ্রেফতার করার পর তিনি আইনি জটিলতায় পড়েন, পরে মেয়েটির বাবা মেয়েটিকে মানসিকভাবে অস্থির বলে উল্লেখ করেন। পরে এরশাদ দাবি করেন যে এটি একটি মিথ্যা অভিযোগ যা তার দলের সম্মানহানি করতে করা হয়েছে। এরশাদ গ্রেফতারের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন। শাদ বিয়ে করেছেন আর্মিম খানকে। আর্মিম খান বাংলাদেশের ২৪টি ব্যবসায়ী পরিবারের মধ্যে অন্যতম একজন ব্যবসায়ী এম আর খানের নাতনী।

২০০০ সালে এরশাদ বিদিশাকে বিয়ে করেন। পরে তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় ও ২০০৫ সালে তৎকালীন বিএনপি সরকার বিদিশার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে আনে। এরশাদ বিদিশাকে তার প্রথম বিবাহ গোপন রাখার জন্য তালাক দিয়েছিলেন, যে বিবাহ তাদের বিয়ের সময়েও বিদ্যমান ছিল। একসঙ্গে তাদের একটি ছেলে রয়েছে যার নাম এরিক এরশাদ।

আরমান এরশাদ ও জেবিন নামে এক ছেলে ও এক মেয়েকে এরশাদ পালক নিয়েছিলেন।

১৯৮৬ সালে ব্রিটেনের দ্য ওবজারার পত্রিকাটি মারিউম মুমতাজের নামের এক মহিলার উদ্ধৃতি দিয়ে জানায় যে, তিনি ১৯৮২ সালের ১৪ আগস্ট গোপনে এরশাদকে বিয়ে করেছিলেন। যার জন্য এরশাদ তাকে ব্যাংকার চৌধুরী বদরুদ্দীনকে তালাক দেওয়ার জন্য বাধ্য করেছিলেন। ১৯৯০-এর প্রথম দিকে, নিউইয়র্ক পোস্ট এবং দা সানডে পত্রিকায় এই বিষয়টি আবার এসেছিল। ১৯৯০ সালের জুন মাসে, ঐ মহিলা বিবাহের বিচ্ছেদের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে এরশাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তিনি অভিযোগ করেন যে এরশাদ তাকে পরিত্যাগ করেছে।১৯৯০ সালে সরকারি মালিকানাধীন দৈনিক বাংলা দাবি করে যে, এরশাদ এবং জিনাত মোশাররফ প্রায়ই বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনের মালিকানাধীন অতিথিশালায় মিলিত হতেন। জিনাতের স্বামী এ. কে. এম. মোশাররফ হোসেনকে ১৯৮৮ সালে শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে এরশাদ সরকারে চাকরি দেওয়ার আগ পর্যন্ত তিনি কোম্পানির চেয়ারম্যান ছিলেন।

মৃত্যু:শারীরিক অসুস্থতার কারণে ২০১৯ সালের ২৬ জুন তাকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ৪ জুলাই তাকে নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। তিনি ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।তিনি রক্তে ইউরিয়া, হিমোগ্লোবিনের স্বল্পতা, ফুসফুসে সংক্রমণ ও কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। ঢাকা সেনানিবাসের কেন্দ্রীয় মসজিদে প্রথম, জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজা টানেলে দ্বিতীয়, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে তৃতীয় এবং রংপুরের কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে চতুর্থ নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবার পর ১৬ জুলাই তাকে রংপুরের পল্লী নিবাসের লিচুবাগানে তার বাবার কবরের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়।তথ্যসূত্র:  হুসেইন মোঃ এরশাদ উইকিপিডিয়া

এ জাতীয় আরও পড়ুন

প্রকাশক: মোঃ মোখলেছুর রহমান,  সহকারি অধ্যাপক -পদার্থ বিজ্ঞান, সোনাহাট ডিগ্রী কলেজ।

স্বত্ত্বাধিকার:  মৃত্তিকা সফট ভূরুঙ্গামারী,কুড়িগ্রাম

যোগাযোগ: Email:sristy2020.net@gmail.com

মোবাইল: ০১৩০৩৬৫৬৩৮৫

 




error: Content is protected !!