টমেটোর রোগ: রোগের কারণ ও প্রতিকার : সৃষ্টি নিউজ
  1. niblkvzwjcfd@inbox.ru : 12asd www.sristy.net :
  2. admin@sristy.net : admin :
  3. ERHRC23wddsf@gmail.com : AdminZaxHH34 :
  4. readzituckda@yahoo.com : alexandriablanch :
  5. jimgann@gmx.com : alexiscastiglia :
  6. marybetsuto@gmx.com : alfiedeville3 :
  7. krapnikovbogdan@gmail.com : allisoncraine72 :
  8. denzduquet@gmx.com : anastasiablau :
  9. xaviersecrest7784@hidebox.org : andreasarmstead :
  10. miswe@gmx.com : angelika3897 :
  11. vickymunro@hidebox.org : apriljoy55956 :
  12. atcurtita1982@coffeejeans.com.ua : archievelazquez :
  13. orsoncopseykwb@mail.com : armoale :
  14. aurelio.trujillo@kinomaxru.ru : aurelio66o :
  15. aconinab@yahoo.com : barrykeartland :
  16. imogenelee@midmico.com : basil17724819 :
  17. marianekoczu@gmx.com : beaudarrow2 :
  18. limaranna@yahoo.com : billarhonda :
  19. ivanletvinko1992@gmail.com : bradlyflanagan :
  20. vieconkasu1981@aabastion.com.ua : calebdenson :
  21. darwinlucas@varsidesk.com : cecilensu1 :
  22. ioaugspurge@gmx.com : celinapersinger :
  23. felisschak@gmx.com : chadwickclemente :
  24. marvistlou@gmx.com : charastillwell7 :
  25. imogthore@gmx.com : charityg02 :
  26. ovalenci@gmx.com : chris08v415816 :
  27. porskr@gmx.com : christiangiven7 :
  28. andreasbessie@petsplit.com : christimcleish3 :
  29. ruthstockm@gmx.com : chuechols79682 :
  30. tradamateqkala832@yahoo.com : cindicharbonneau :
  31. naja.bendtsen.1997@web.de : clariceaiello8 :
  32. wiboubalia3765@inbox.ru : clevelandgratwic :
  33. fredericla@gmx.com : clevelandhayter :
  34. moricigrumant@outlook.com : clobwik :
  35. jeanicmassar@gmx.com : collincruickshan :
  36. jonikug@gmx.com : cyrilharrel697 :
  37. reomanbuper@yahoo.com : danielageorgina :
  38. diacheckficmu@yahoo.com : demetriuschester :
  39. jetttardent@1secmail.com : doloreshalligan :
  40. pogewgep@yandex.ru : dominikbayldon :
  41. carolygall@gmx.com : dorris06k07965 :
  42. dorreineck@gmx.com : dougz6629398122 :
  43. thomaspoqu@gmx.com : elisax67493 :
  44. darrhafle@gmx.com : elissa0159 :
  45. matodesucare2@web.de : elysebrodzky :
  46. glindmartic@gmx.com : epifaniadiamond :
  47. cyswa@gmx.com : ericacani548345 :
  48. holshinau@gmx.com : eusebiaavera :
  49. evicop@gmx.com : fausto37r75774 :
  50. jonepooleys@outlook.com : favvari :
  51. soledmacquarr@gmx.com : fawn33p8526 :
  52. keyssin@gmx.com : felixfetty :
  53. viepourfitip1983@coffeejeans.com.ua : flor113329777 :
  54. eboneuhar@gmx.com : frankiekahl35 :
  55. leatmana@gmx.com : gemmafoley0677 :
  56. iolanthnitkowsk@gmx.com : grantmannix200 :
  57. stanformatt@gmx.com : hannahroybal :
  58. alcervero1977@coffeejeans.com.ua : harrylarocca51 :
  59. gamagru@gmx.com : iolagill498824 :
  60. robiniccol@gmx.com : jefferystones2 :
  61. rodrickschreiner9984@safeemail.xyz : jestine1603 :
  62. leontinsticke@gmx.com : joeykozak322122 :
  63. timotcwalin@gmx.com : joleneangeles :
  64. jazaloud@gmx.com : jsvhalina0 :
  65. margotmaybell@kogobee.com : julissahyatt69 :
  66. elliottnewman4891@kittenemail.com : kaylenelombardo :
  67. charleysabo5394@hidebox.org : kelliaguilar942 :
  68. Kratos@AS10.dDNSfree.Com : Kratos :
  69. trogn@gmx.com : latoshabarrenger :
  70. latosha_peach@northernpinetreetrust.co.uk : latoshapeach8 :
  71. lauritheriot3@marry.raytoy.com : lauritheriot802 :
  72. gloriwu@gmx.com : leonor7342 :
  73. chrishal@gmx.com : lessierra6297 :
  74. paulettoschuppjedbra@gmail.com : levix80850161 :
  75. inpatalve@yahoo.com : lilianachambliss :
  76. chebotarenko.2022@mail.ru : linomcdavid76 :
  77. cipletede@yahoo.com : lorrichumleigh :
  78. csten@gmx.com : louissoubeiran3 :
  79. bremanocch@gmx.com : lourife80058359 :
  80. euphemisnid@gmx.com : lucielaidley891 :
  81. arrun@gmx.com : madiebellasis56 :
  82. sharilyurspr@gmx.com : malissak49 :
  83. lescutasoft@yahoo.com : malloryworgan45 :
  84. vinnisapa@gmx.com : mariloubriones :
  85. antoineeaston6275@hidebox.org : mauriciododds43 :
  86. notforalluse1@gmail.com : md Shopon islam :
  87. soninorr@gmx.com : merryschaefer :
  88. zeravemn7795@inbox.ru : milesrimmer16 :
  89. trazcoundiothe@yahoo.com : molliehoy920286 :
  90. tilpenttrafal@yahoo.com : monroefoust90 :
  91. derkar@gmx.com : murielelias102 :
  92. medpern@gmx.com : myracory91 :
  93. jorva@gmx.com : niamhdement0 :
  94. chawilf@gmx.com : philomenalogan4 :
  95. cheliheami1131@inbox.ru : porfirio55k :
  96. theobalnewna@gmx.com : qgrkimberly :
  97. esterntwandablette@gmail.com : rory416241 :
  98. lanerep@gmx.com : roseannebou :
  99. debrooz@gmx.com : rudygaither1427 :
  100. smtpfox-opnkm@hetmobielecafe.be : rxrhack1337 :
  101. kitcud@gmx.com : sandymuecke :
  102. shahindom76@gmail.com : Shahin :
  103. vegantato@yahoo.com : shanibeer61077 :
  104. ariadcamer@gmx.com : shastafoss1221 :
  105. joytr@gmx.com : shelleytrethowan :
  106. enedinrodge@gmx.com : sherylm662 :
  107. tmatushevs@gmx.com : sonjawhittell0 :
  108. donour@gmx.com : stantonfitzgibbo :
  109. lescriven@gmx.com : stephanielewers :
  110. karla.nguyen.1993@web.de : tandymccartney :
  111. laura.dalgaard.1984@web.de : taniabernal84 :
  112. test10581124@inboxmail.imailfree.cc : test10581124 :
  113. test11218044@mailbox.imailfree.cc : test11218044 :
  114. test13168404@mailbox.imailfree.cc : test13168404 :
  115. test16442707@mailbox.imailfree.cc : test16442707 :
  116. test17414361@mailbox.imailfree.cc : test17414361 :
  117. test18828469@inboxmail.imailfree.cc : test18828469 :
  118. test18964396@mailbox.imailfree.cc : test18964396 :
  119. test19347793@mailbox.imailfree.cc : test19347793 :
  120. test20429266@email.imailfree.cc : test20429266 :
  121. test2109320@inboxmail.imailfree.cc : test2109320 :
  122. test21326394@mailbox.imailfree.cc : test21326394 :
  123. test22717633@email.imailfree.cc : test22717633 :
  124. test26056460@mailbox.imailfree.cc : test26056460 :
  125. test28055302@email.imailfree.cc : test28055302 :
  126. test29683271@mail.imailfree.cc : test29683271 :
  127. test30138553@email.imailfree.cc : test30138553 :
  128. test31035553@email.imailfree.cc : test31035553 :
  129. test31383434@inboxmail.imailfree.cc : test31383434 :
  130. test3229074@inboxmail.imailfree.cc : test3229074 :
  131. test34149248@mailbox.imailfree.cc : test34149248 :
  132. test34245072@email.imailfree.cc : test34245072 :
  133. test37547205@email.imailfree.cc : test37547205 :
  134. test37779061@mailbox.imailfree.cc : test37779061 :
  135. test38205197@email.imailfree.cc : test38205197 :
  136. test38664372@mailbox.imailfree.cc : test38664372 :
  137. test39129282@mailbox.imailfree.cc : test39129282 :
  138. test40389914@mailbox.imailfree.cc : test40389914 :
  139. test43975584@mailbox.imailfree.cc : test43975584 :
  140. test44295207@mailbox.imailfree.cc : test44295207 :
  141. test44746441@email.imailfree.cc : test44746441 :
  142. test45001979@inboxmail.imailfree.cc : test45001979 :
  143. test45341961@mailbox.imailfree.cc : test45341961 :
  144. test48548203@inboxmail.imailfree.cc : test48548203 :
  145. test48811218@mailbox.imailfree.cc : test48811218 :
  146. test49907937@mailbox.imailfree.cc : test49907937 :
  147. test5474540@mailbox.imailfree.cc : test5474540 :
  148. test636733@mailbox.imailfree.cc : test636733 :
  149. test6956998@mail.imailfree.cc : test6956998 :
  150. test9226500@mailbox.imailfree.cc : test9226500 :
  151. onpilemo@yahoo.com : tiffanyhueber4 :
  152. dmitriy@ataberkestate.com : TimothyTroub :
  153. jaylkozeya@gmx.com : toneyspann6 :
  154. flp2k15e2@wuuvo.com : user_eignkp :
  155. viszczeblew@gmx.com : vilmar120074004 :
  156. medewal@gmx.com : xehnydia2599 :
টমেটোর রোগ: রোগের কারণ ও প্রতিকার : সৃষ্টি নিউজ
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০২:০৬ অপরাহ্ন

টমেটোর রোগ: রোগের কারণ ও প্রতিকার

সৃষ্টি কৃষি ডেস্ক
  • প্রকাশিত : সোমবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৩১৮ বার পঠিত
টমেটোর রোগ,রোগের কারণ ও প্রতিকার

বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান সবজি টমেটো। টমেটো বিভিন্ন ভাবে ব্যবহার হয়ে থাকে যেমন, তরকারি সালাদ, স্যুপ, চাটনি, সস। টমেটো উৎপাদনে প্রধান প্রতিবন্ধকতা হলো রোগবালাই।

টমেটো রোগগুলো নিয়ন্তনে রাখতে পারলে ফলন অনেক বৃদ্ধিপাবে সবজি হিসেবে টমেটো চাষ করার ক্ষেত্রে বেশ কিছু রোগ সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

বিভিন্ন রোগের জন্য এর ফলন অনেকটাই ব্যাহত হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে চাষিরা রোগ চিহ্নিত করলেও তা নির্মূল করার উপায় জানেন না।

কোন রোগে কী সার, কী কীটনাশক প্রয়োগ করতে হয় সে সম্পর্কে বিজ্ঞানসম্মত ধারণা নেই অনেকেরই। যার ফলে দেখা যায় ফলন ভালো হলেও বেশির ভাগ টমেটোর গুণগত মান ভালো নয়।

যার ফলে সঠিক দামও পাওয়া যায় না।তবে গ্রাফটিং পদ্ধতিতে টমেটো চাষ করলে টমেটোর গাছে রোগ বালাই হয়না বললেই চলে। টমেটোর রোগ ও তার প্রতিকার সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।উপযুক্ত সতর্কতা অবলম্বন করলে এসব রোগ অনেকটাই নির্মূল করা সম্ভব হবে।

গোড়া ও মূল পচা  (Damping off and root rot) 

রোগের কারণ : গোড়া ও মূল পচা (Damping off and root rot)পিথিয়াম, রাইজোকটোনিয়া, ফাইটোপথোরা, ক্লেরোশিয়াম(Phythium, Rhi“otocnia, Phytophthora, Sclerotium etc.) ও অন্যান্য মাটিবাহিত ছত্রাকের আক্রমণে এ রোগটি হয়ে

রোগের বিস্তার ও লক্ষণ : মাটি সব সময় স্যাঁতস্যাঁতে থাকলে ক্রমাগত মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া বিরাজ করলে এবং বায়ু চলাচলে বিঘ্ন ঘটলে এ রোগের আক্রমণের আশঙ্কা বেশি থাকে।

রোগটি ছত্রাকের আক্রমণে বীজতলায় হয়ে থাকে। এটি একটি মারাত্মক রোগ। বীজে আক্রমণ হলে বীজ পচে যায়। বীজ অংকুরোদগমের পরেই প্রাথমিক পর্যায়ে চারা মারা যায় একে প্রিইমারজেন্স ড্যাম্পিং অফ বলে।

পোস্ট-ইমারজেন্স ড্যাম্পিং অফের বেলায় চারার হাইপোকোটাইলের কর্টিক্যাল কোষ দ্রুত কুঁচকে যায় ও কালো হয়ে যায়।

চারার কা- মাটির কাছাকাছি পচে চিকন হয়ে যায়। কান্ডের গায়ে ছত্রাকের উপস্থিতি দেখা যায়। চারার গোড়া চিকন, লিকলিকে হয়ে ঢলে পড়ে ও মারা যায়।

রোগের প্রতিকার: 

সুনিষ্কাশিত উঁচু বীজতলা তৈরি করতে হবে যেখানে সূর্য্যালোক ও বায়ু চলাচল পর্যাপ্ত থাকে; রোগমুক্ত বীজ ব্যবহার করতে হবে; বীজ বপনের ২ সপ্তাহ পূর্বে ফরমালডিহাইড দিয়ে বীজতলা শোধন করতে হবে;

বায়োফানজিসাইড- ট্রাইগোডারমা দ্বারা বীজ শোধন করে বপন করতে হবে; অর্ধ কাঁচা মুরগির বিষ্ঠা বীজ বপনের ৩ সপ্তাহ আগে হেক্টরপ্রতি ৩-৪ টন হিসেবে মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে হবে;

কাঠের গুঁড়া বীজতলার ওপর ৩ ইঞ্চি বা ৬ সেমি উঁচু করে ছিটিয়ে দিয়ে আগুন দিয়ে পুড়ে ফেলতে হবে; বীজতলা রৌদ্রপূর্ণ দিনে সূর্য কিরণে স্বচ্ছ পলিথিন দিয়ে কমপক্ষে ৩-৪ সপ্তাহ ঢেকে রাখতে হবে;

প্রোভেক্স-২০০ বা ব্যভিস্টিন (প্রতি কেজি বীজে ২.৫ গ্রাম) দিয়ে শোধন করে বীজ বপন করতে হবে; বীজ ৫২0C তাপমাত্রায় গরম পানিতে ৩০ মিনিট রেখে শোধন করে নিয়ে বপন করতে হবে;

রোগের আক্রমণ দেখা দিলে ব্যভিস্টিন প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম অথবা কিউপ্রাভিট প্রতি লিটার পানিতে ৪ গ্রাম হিসাবে মিশিয়ে চারার গোড়ায় স্প্রে করতে হবে।

টমেটো ক্ষেত্রের মাটি যদি সব সময় স্যাঁতস্যাঁতে থাকে ও ক্রমাগত মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়া বিরাজ করলে এবং বায়ু চলাচলে বিঘ্ন ঘটলে এ রোগের আক্রমণের আশঙ্কা বেশি। এটি একটি মারাত্মক রোগ। বীজে আক্রমণ হলে বীজ পচে যায়। বীজ অংকুরোদগমের পরেই প্রাথমিক পর্যায়ে চারা মারা যায় একে প্রিইমারজেন্স ড্যাম্পিং অফ বলে।

পোস্ট-ইমারজেন্স ড্যাম্পিং অফের বেলায় চারার হাইপোকোটাইলের কর্টিক্যাল কোষ দ্রুত কুঁচকে যায় ও কালো হয়ে যায়। জেনে নিন >>নতুন তৈলবীজ পেরিলা পরিবর্তন আনতে পারে দেশের অর্থনীতিতে

গাছ বা পাতা কুঁকড়ানো (Leaf curl) রোগের কারণ ও বিস্তার : ভাইরাসের (Virus) আক্রমণে এ রোগ হয়ে থাকে। সাদা মাছি নামক পোকার আক্রমণে এ রোগ অসুস্থ গাছ থেকে সুস্থ গাছে সংক্রমিত হয়।

পাতা কুঁকড়ানো রোগের তিনটা কারণে হয়ে থাকে। যদি গাছে মাকর ও থ্রিপস্ পোকা থাকে তাহলে গাছ কুকরে যায় মাটিতে এবং জিং এর ঘাটতি থাকে তখন এটা বেশি দেখা যায়।

পাতার কিনার থেকে শিরার দিকে কুঁকড়িয়ে যায়। পাতা খসখসে হয় এবং হলুদ হয়ে যায়, এতে করে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।

প্রতিকার: রোগ প্রতিরোধ জাতের চারা লাগাতে হবে। আক্রান্ত গাছ তুলে পুড়িয়ে ফেলতে হবে। গাছ রুপনের ১৫ দিন পর থেকেই আট দিন পর পর ভার্টিমেক ও কনফিডর মিস্কার করে স্প্রে করতে হবে। জিং যদি চাষে দেন তা হলে চারা লাগানোর এক মাস পর থেকে ১৫ দিন পর পর একবার মিমজিং গোল্ড স্প্রে করতে হবে।

ঢলে পড়া (Bacterial wilt):

রোগের কারণ ও বিস্তার: ঢলে পড়া রোগটি টমেটো, মরিচ ও বেগুন জাতিয় ফসলের জাতিগত রোগ।রালসটোনিয়া সোলানেসিয়ারাম (Ralstonia solanacearum) নামক ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ হয়। গাছের পরিত্যক্ত অংশ, মাটি ও বিকল্প পোষকে এ রোগের জীবাণু বেঁচে থাকে। সেচের পানি ও মাঠে ব্যবহৃত কৃষি যন্ত্রপাতির মাধ্যমে এ রোগ ছড়ায়।

উচ্চ তাপমাত্রা (২৮-৩২০ সেলসিয়াস) ও অধিক আর্দ্রতায় এ রোগ দ্রুত ছড়ায়।প্রায়ই দেখা যায় উন্নত জাত হওয়া সত্ত্বেও টমেটোর পেছন দিকে কালো কালো দাগ।

নোনা মাটি, বেশি ভেজা বা বেশি শুকনো মাটি ও ক্যালসিয়ামের অভাবযুক্ত মাটিতে এ শারীরবৃত্তীয় অনিয়মজনিত রোগটি হয়।

লক্ষণ: গাছ বৃদ্ধির যে কোনো সময় এ রোগ হতে পারে এবং ব্যাপক ক্ষতি করে। আক্রান্ত গাছের পাতা ও ডাঁটা খুব দ্রুত ঢলে পড়ে এবং গাছ মরে যায়। গাছ মরার পূর্ব পর্যন্ত পাতায় কোনো প্রকার দাগ পড়ে না।

মাটির ওপরে আক্রান্ত গাছের গোড়া থেকে সাদা রঙের শিকড় বের হয়। রোগের প্রারম্ভে কান্ডের নিম্নাংশ চিরলে এর মজ্জার মধ্যে কালো রঙের দাগ দেখা যায় এবং চাপ দিলে তা থেকে ধূসর বর্ণের তরল আঠাল পদার্থ বের হয়ে আসে। এ তরল পদার্থে অসংখ্য ব্যাকটেরিয়া থাকে।

তাছাড়া আক্রান্ত গাছের গোড়ার দিকের কান্ড কেটে পরিষ্কার গ্লাসে পানিতে ডুবিয়ে রাখলে সাদা সুতার মতো ব্যাকটেরিয়াল উজ বের হয়ে আসতে দেখা যায়।

প্রতিকার :প্রাথমিক অবস্থায় বীজ শোধন করে নিতে হবে। জমির মাটি শোধন করে নিতে হবে।বীজ অডুস্টিন /ম্যানকেজেব/ কার্বাডিজেম পানির সাথে মিশিয়ে ওই পানিতে দুই ঘন্টা  ভিজিয়ে রাখলে বীজ শোধন করতে হবে।

মাটি শোধন করার জন্য সাধারনত ডলো চুন প্রতি বিঘায় ৯৯ কেজি দিতে হয়।যেটা একবার দিলে তিন বছর আর দিতে হবে না।  আবার অনেকেই ব্লেসিং পাউটার দিয়ে ও মাটি শোধন করেন, প্রতি বিঘায় দুই কেজি করে দিয়ে।

এর পরে ও যদি ঢলে পড়া আসে  ছত্রাক নাশক স্প্রে করতে হবে। আরেকটা কারনে ডলে পরা আসে যেটা মাটিতে যদি কেচেঁ বেশি থাকে সে ক্ষেত্রে দানাদার কীটনাশক দিতে হবে। জমি সব সময় আগাছা মুক্ত রাখতে হবে। জেনে নিন>>রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও উচ্চ ফলনশীল টমেটোর জাতগুলো থেকে জেনে নিন কোনটি চাষ করে লাভবান হবেন

কম পটাশযুক্ত বালুমাটিতে টমেটো চাষ করলে ছত্রাকজনিত ঢলে পড়া রোগ দেখা যায়।

এ জন্য জমিতে বেশি পরিমাণে পটাশ ও জৈব সার প্রয়োগ করতে হবে। এ ছাড়া উপকারী ছত্রাক ট্রাইকোডারমা ভিরিডি জৈব সারের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

এর জন্য নিয়মিত ও নিয়ন্ত্রিত পানি সেচ দেয়া দরকার। এ ছাড়া চাপানো সার হিসেবে ক্যান সার ব্যবহার করলে এবং দুই গ্রাম চুন প্রতি লিটার পানিতে গুলে স্প্রে করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

জৈব সারের সাথে ট্রাইকোডারমা ভিরিডি নামক উপকারী ছত্রাক বীজতলায় বা মূল জমিতে ব্যবহার করলে চারা ধসা ও চারা ঢলে পড়া রোগ নির্মূল করা যায়।

এ ছাড়া বীজ শোধন করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। তিত বেগুন গাছে গ্রাফটিং করা গাছে ঢলে পড়া রোগ  খুবই কম হয়। বিজের গাছ মাত্র তিন মাসে শেষ তবে  গাছ যদি সুস্থ থাকে গ্রাফটিং গাছ সাত মাস ফল দিতে সক্ষম হয়।

পর্যায়ে বাদাম, সরিষা, ভুট্টা ফসল চাষ করতে হবে। রোগাক্রান্ত গাছ দেখা মাত্র মাটিসহ তুলে ধ্বংস করতে হবে

টমেটোর জমি স্যাঁতস্যাঁতে রাখা যাবে না; হেক্টর প্রতি ২০ কেজি স্টেবল ব্লিচিং পাউডার শেষ চাষের সময় মাটিতে প্রয়োগ করতে হবে; 7স্ট্রেপ্টোমাইসিন সালফেট (অক্সিটেট্রাসাইক্লিন) ২০ পিপিএম অথবা ক্রোসিন এজি ১০ এসপি ০.৫ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে মিশিয়ে ৪-৭ দিন পর পর স্প্রে করতে হবে। জেনে নিন>> লাভ জনক পদ্ধতিতে বাধা কফি চাষ

নাবি ধসা (Late blight) :

রোগের কারণ ও বিস্তার : এটি একটি ছত্রাক জনিত রোগ।  ফাইটপথোরা ইনফেস্ট্যান্স (Phytophthora infestans) নামক ছত্রাকের আক্রমণে হয়ে থাকে। নিম্ন তাপমাত্রা (১২-১৫০ সেলসিয়াস), উচ্চ আর্দ্রতা (৯৬% এর ওপরে) ও মেঘাচ্ছন্ন স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়া এবং গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হলে রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়। বাতাস ও সেচের মাধ্যমে এ রোগ দ্রুত বৃদ্ধি এ রোগটি  গাছের আক্রান্ত অংশ, বীজ, মাটি ও পানি দ্বারা বিস্তার লাভ করে।

এ রোগের আক্রমণে হলে টমেটো গাছের পাতায় বিভিন্ন আকারের ভেজা বাদামি বর্ণের দাগ পড়ে। দাগগুলো দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। একটা সময়েগাছের পাতা পচে যায়।

শুষ্ক ও আর্দ্র আবহাওয়ায় পাতার পচন দ্রুত বিস্তার লাভ করে। এ রোগের আক্রমনের কয়েক দিনের মধ্যে গাছ মারা যায়।

প্রথমে ফলের উপরিভাগে ধূসর সবুজ, পানি ভেজা দাগের আবির্ভাব হয়। ক্রমশ সে দাগ বেড়ে ফলের প্রায় অর্ধাংশ ছড়িয়ে পড়ে এবং আক্রান্ত অংশ বাদামি হয়ে যায় এবং ধূসর বর্ণের দাগ পড়ে।

প্রতিকার:

এ রোগ দেখা দিলে ফসলের পরিত্যক্ত অংশ পুড়িয়ে ফেলতে হবে। নীরোগ বীজ ব্যবহার করে চারা তৈরি করতে হবে। শস্য পর্যায় অনুসরণ করতে হবে।

রোগের লক্ষণ দেখার সঙ্গে সঙ্গে একরোবেট এমজেড (ম্যানকোজেব+ডাইমেথোমরফ্) ০৪গ্রাম/লিটার বা হেডলাইন টিম (পাইরাক্লস্ট্রাবিন+ডাইমেথোমরফ্) ২.৫০গ্রাম/লিটার বা হেমেনকোজেব বা রিডোমিল গোল্ড বা ইন্ডোফিল এম-৪৫ বা ডায়থেন এম-৪৫ প্রভৃতি ০৪গ্রাম/লিটার হারে পানিতে মিশিয়ে ৭ থেকে ১০ দিন অন্তর স্প্রে করতে হবে।

ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে টমেটো ঢলে পড়ে যায়। এর থেকে সবজি বাঁচাতে সুসংহত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। এর জন্য শস্য পর্যায় অনুসরণ করা, জৈবসার প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করা উচিত।

প্রতি বিঘায় ৬০ থেকে ৮০ কেজি নিমখোল ব্যবহার করা দরকার। এ ছাড়া যে জমিতে এ ধরনের রোগ দেখা যায় সেখানে ধঞ্চে জাতীয় ফসলের চাষ করতে হবে।

টমেটোর অন্যতম রোগ ভাইরাস বা ফুটে রোগ: এ রোগ সাধারণত সাদা মাছির মাধ্যমে ছড়ায়। এর প্রধান প্রতিকার হলো বাহক এ মাছিগুলো দমন করা।

এ ছাড়া কীটনাশক মেসনইমিডা কোপ্রিড ১৭.৮ শতাংশ এক মিলিমিটার নিয়ে সাড়ে সাত লিটার পানিতে গুলে স্প্রে করতে হবে। বীজতলা থেকে এর প্রতিকারের ব্যবস্থা নিতে হবে।কম পটাশযুক্ত বালুমাটিতে টমেটো চাষ করলে ছত্রাকজনিত ঢলে পড়া রোগ দেখা যায়।

এ জন্য জমিতে বেশি পরিমাণে পটাশ ও জৈব সার প্রয়োগ করতে হবে।

এ ছাড়া উপকারী ছত্রাক ট্রাইকোডারমা ভিরিডি জৈব সারের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। প্রায়ই দেখা যায় উন্নত জাত হওয়া সত্ত্বেও টমেটোর পেছন দিকে কালো কালো দাগ।

নোনা মাটি, বেশি ভেজা বা বেশি শুকনো মাটি ও ক্যালসিয়ামের অভাবযুক্ত মাটিতে এ শারীরবৃত্তীয় অনিয়মজনিত রোগটি হয়। এর জন্য নিয়মিত ও নিয়ন্ত্রিত পানি সেচ দেয়া দরকার।

এ ছাড়া চাপানো সার হিসেবে ক্যান সার ব্যবহার করলে এবং দুই গ্রাম চুন প্রতি লিটার পানিতে গুলে স্প্রে করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে।জৈব সারের সাথে ট্রাইকোডারমা ভিরিডি নামক উপকারী ছত্রাক বীজতলায় বা মূল জমিতে ব্যবহার করলে চারা ধসা ও চারা ঢলে পড়া রোগ নির্মূল করা যায়।

এ ছাড়া বীজ শোধন করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

শিকড় গিট (Root knot) :

রোগের কারণ ও বিস্তার: মেলোয়ডোগাইনি (Meloidogyne spp) প্রজাতির কৃমির আক্রমণে হয়। কৃমি মাটিতে বসবাস করে। সাধারণত মাটির উপরিভাগে এরা অবস্থান করে। উচ্চ তাপমাত্রা (২৫-২৮০ সে.) ও হালকা মাটি এদের বসবাস ও বংশবিস্তারের জন্য খুবই সহায়ক। বৃষ্টি ও সেচের পানি এবং কৃষি যন্ত্রপাতির মাধ্যমে এদের বিস্তার হয়।

রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার : মাটিতে অবস্থানকারী কৃমির আক্রমণের ফলে আক্রান্ত স্থলের কোষগুলো দ্রুত বৃদ্ধি পায় ও সে স্থান স্ফিত হয়ে নট বা গিটের সৃষ্টি করে।

আক্রান্ত গাছ দুর্বল, খাট ও হলদেটে হয়ে যায়। আক্রান্ত গাছের বৃদ্ধি স্বাভাবিকের তুলনায় কম হয়। গাছের গোড়ার মাটি সরিয়ে শিকরে গিটের উপস্থিতি দেখে সহজেই এ রোগ শনাক্ত করা যায়।

চারা গাছ আক্রান্ত হলে সব শিকড় নষ্ট হয়ে যায় ও দিনের বেলায় গাছ ঢলে পড়ে।

ফুল ও ফল ধারণ ক্ষমতা একেবারেই কমে যায়। রোগ প্রতিরোধী জাত চাষ করতে হবে; জমিতে সরিষা, বাদাম, গম, ভুট্টা প্রভৃতি শস্য পর্যায় অবলম্বন করতে হবে;

শুষ্ক মৌসুমে জমি পতিত রেখে ২-৩ বার চাষ দিয়ে মাটি ভালোভাবে শুকাতে হবে; জমি পতিত রাখলে আগের ফসলের কৃমি মারা যায়, তাই সম্ভব হলে জমি পতিত রাখতে হবে;

জমি জলাবদ্ধ রাখলেও কৃমি মারা যায়, তাই সম্ভব হলে জমি কয়েক সপ্তাহ হতে কয়েক মাস পর্যন্ত জলাবদ্ধ রাখতে হবে; বীজতলা রৌদ্রপূর্ণ দিনে সূর্য কিরণে স্বচ্ছ পলিথিন দ্বারা কমপক্ষে ৩-৪ সপ্তাহ ঢেকে রাখতে হবে; অর্ধ কাঁচা মুরগির বিষ্ঠা হেক্টরপ্রতি ৪-৫ টন চারা লাগানোর ২১ দিন আগে জমিতে প্রয়োগ করে মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে;

চারা লাগানোর সময় হেক্টর প্রতি ৩০ কেজি ফুরাডান ৫ জি মাটিতে প্রয়োগ করতে হবে। জেনে নিন >> পেরিলা চাষ পদ্ধতি

ফিউজারিয়াম ঢলে পড়া (Fusarium wilt) :

রোগের কারণ ও লক্ষণ : ফিউজারিয়াম অক্সিস্পোরাম এফ. এসপি. লাইকোপারসিসি (Fusarium oxysporum f. sp. lycopersici) নামক ছত্রাকের আক্রমণে হয়। চারা গাছের বয়স্ক পাতাগুলো নিচের দিকে বেঁকে যায় ও ঢলে পড়ে।

ধীরে ধীরে পুরো গাছই নেতিয়ে পড়ে ও মরে যায়। গাছের কান্ডে ও শিকড়ে বাদামি দাগ পড়ে। গাছে প্রথমে কান্ডে এক পাশের শাখার পাতাগুলো হলদে হয়ে আসে এবং পরে অন্যান্য অংশ হলুদ হয়ে যায়। রোগ বৃদ্ধি পেলে সব পাতাই হলুদ হয়ে যায় এবং অবশেষে সম্পূর্ণ শাখাটি মরে যায়। এভাবে পুরো গাছটাই ধীরে ধীরে মরে যায়।

প্রতিকার: প্রাথমিক অবস্থায় বীজ শোধন করে নিতে হবে। জমির মাটি শোধন করে নিতে হবে।বীজ অডুস্টিন /ম্যানকেজেব/ কার্বাডিজেমপানির সাথে মিশিয়ে ওই পানিতে দুই ঘন্টা  ভিজিয়ে রাখলে বীজ শোধন করতে হবে।

মাটি শোধন করার জন্য সাধারনত ডলো চুন প্রতি বিঘায় ৯৯ কেজি দিতে হয়।যেটা একবার দিলে তিন বছর আর দিতে হবে না।  আবার অনেকেই ব্লেসিং পাউটার দিয়ে ও মাটি শোধন করেন, প্রতি বিঘায় দুই কেজি করে দিয়ে। এর পরে ও যদি ঢলে পড়া আসে  ছত্রাক নাশক স্প্রে করতে হবে।

আরেকটা কারনে ডলে পরা আসে যেটা মাটিতে যদি কেচেঁ বেশি থাকে সে ক্ষেত্রে দানাদার কীটনাশক দিতে হবে। জমি সব সময় আগাছা মুক্ত রাখতে হবে ।

জমিতে উপযুক্ত পরিমাণে পটাশ সার প্রয়োগ করলে রোগ অনেক কম হয়; শিকড় গিট কৃমি দমন করতে হবে কারণ এটি ছত্রাকের অনুপ্রবেশে সাহায্য করে; রোগের আক্রমণ দেখা দিলে ব্যভিস্টিন প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম ও কিউপ্রাভিট প্রতি লিটার পানিতে ৪ গ্রাম হিসাবে মিশিয়ে চারার গোড়ায় স্প্রে করতে হবে।

বুনো বেগুন গাছের কাণ্ডের সাথে কাক্সিক্ষত জাতের টমেটোর জোড় কলম করতে হবে; শস্য পর্যায়ে বাদাম, সরিষা, ভুট্টা ফসল চাষ করতে হবে; রোগাক্রান্ত গাছ দেখা মাত্র মাটিসহ তুলে ধ্বংস করতে হবে; টমেটোর জমি স্যাঁতস্যাঁতে রাখা যাবে না;

হেক্টর প্রতি ২০ কেজি স্টেবল ব্লিচিং পাউডার শেষ চাষের সময় মাটিতে প্রয়োগ করতে হবে; স্ট্রেপ্টোমাইসিন সালফেট (অক্সিটেট্রাসাইক্লিন) ২০ পিপিএম অথবা ক্রোসিন এজি ১০ এসপি ০.৫ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে মিশিয়ে ৪-৭ দিন পর পর স্প্রে করতে হবে। জেনে নিন>> লাভজনক উপায়ে বেগুন চাষ পদ্ধতি

হলুদ মোজাইক (Mosaic) ভাইরাস :

রোগের কারণ ও বিস্তার : ভাইরাসের (Virus) আক্রমণে এ রোগ হয়। সাদা মাছি নামক পোকার আক্রমণে এ রোগ অসুস্থ গাছ হতে সুস্থ গাছে সংক্রমিত হয়।

রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার : অল্প বয়সে টমেটো গাছ রোগাক্রান্ত হলে গাছ খর্বাকৃতির হয়। গাছের পাতার শিরার রঙ হলুদ হয়ে যায়। আক্রান্ত পাতা স্বাভাবিক সবুজ রঙ হারিয়ে হালকা সবুজ ও ফ্যাকাশে হলুদ রঙের মিশ্রণ সৃষ্টি করে।

পাতার অনুফলকগুলো কিছুটা কুঁচকিয়ে বিকৃত হয়ে যায়। পরবর্তী পর্যায়ে পুরো পাতা হলুদ হয়ে যায়। আক্রান্ত গাছের ফলন কম হয় ও ফলের স্বাভাবিক আকার নষ্ট হয়ে যায়।

প্রতিকার : সুস্থ গাছ হতে বীজ সংগ্রহ করতে হবে ও সুস্থ চারা লাগাতে হবে; রোগাক্রান্ত গাছ দেখা মাত্র তুলে ধ্বংস করতে হবে; জমিতে কাজ করার সময় তামাক, বিড়ি, সিগারেট ধূমপান করা থেকে বিরত থাকতে হবে;

সাদা মাছি নিধনের জন্য কীটনাশক (৫ গ্রাম/কেজি বীজ) দ্বারা বীজ শোধন করতে হবে; পোকা দমনের জন্য এডমায়ার/এওয়ার্ড/ফরচুনেট/ইামটাক্লোপ্রিড গ্রুপের  সাদা মাছিনাশক  কীটনাশক  নিরএদশিত মাত্রায় স্প্রে করতে হবে মিশিয়ে ৭-১০ দিন পর পর স্প্রে করতে হবে।

জেনে নিন>> বারি টমেটো-১ (মানিক) চাষ পদ্ধতি

জেনে নিন>> বারি টমেটো-২ (রতন) চাষ পদ্ধতি

জেনে নিন>>রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও উচ্চ ফলনশীল টমেটোর জাতগুলো থেকে জেনে নিন কোনটি চাষ করে লাভবান হবেন

জেনে নিন>>সরিষার বিভিন্ন জাত থেকে বেছে নিন আপনার পছন্দের জাত

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

৪ responses to “টমেটোর রোগ: রোগের কারণ ও প্রতিকার”

  1. […] মাটি: টমেটো এদেশে শীতকালীন ফসল। উচ্চ তাপমাত্রা এবং বাতাসের আর্দ্রতা টমেটো গাছে রোগ বিস্তারে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করে। আবার উচ্চ তাপমাত্রা ও শুষ্ক আবহাওয়ায় ফুল ঝরে পড়ে। রাত্রির তাপমাত্রা ২৩০ সে. এর নিচে থাকলে তা গাছে ফুল ও ফল ধারণের জন্য বেশি উপযোগী। গড় তাপমাত্রা ২০-২৫০ সে. টমেটোর ভাল ফলনের জন্য সবচেয়ে উপযোগী। আলো-বাতাস যুক্ত ঊর্বর দোঁআশ মাটি টমেটো চাষের জন্য সবচেয়ে ভাল। তবে উপযুক্ত পরিচর্যায় বেলে দোঁআশ থেকে এঁটেল দোঁআশ সব মাটিতেই টমেটো ভাল জন্মে। বন্যার পানিতে ডুবে যায় এমন জমিতে এর ফলন সবচেয়ে ভাল হয়। মাটির অম্লতা ৬০ – ৭০ হলে ভাল হয়। মাটির অম্লতা বেশি হলে জমিতে চুন প্রয়োগ করা উচিত। ঊর্বর দোঁআশ মাটি টমেটো চাষের জন্য সবচেয়ে ভাল। তবে উপযুক্ত পরিচর্যায় বেলে দোঁআশ থেকে এঁটেল দোঁআশ সব মাটিতেই টমেটো ভাল জন্মে। বন্যার পানিতে ডুবে যায় এমন জমিতে এর ফলন সবচেয়ে ভাল হয়। মাটির অম্লতা ৬০ – ৭০ হলে ভাল হয়। মাটির অম্লতা বেশি হলে জমিতে চুন প্রয়োগ করা উচিত। জেনে নিন>> টমেটোর রোগ,রোগের কারণ ও প্রতিকার […]

  2. […] পটল পরপরাগায়ন জাতীয় সবজি। পটোলের পুরুষ ও স্ত্রী গাছ ভিন্ন হয়। ১০ ভাগ পুরুষ গাছ জমিতে সুষম দূরত্বে থাকলে অধিক পরাগায়ন হয়। পরাগায়ন না হলে ফুল শুকিয়ে ঝরে যায়। পরাগায়নের সময়কাল ভোর ৫টা থেকে সকাল ৮টা। পুরুষ ফুল সংগ্রহ করে পুংরেণু স্ত্রী ফুলের গর্ভমুণ্ডে লাগিয়ে কৃত্রিম পরাগায়ন করা যায়। এছাড়া পুরুষ ফুলের পরাগরেণু পানিতে মিশিয়ে ড্রপার দিয়ে একফোঁটা করে প্রতি স্ত্রী ফুলের গর্ভমুণ্ডে লাগিয়েও ভালো ফল পাওয়া যায়। পুরুষ ফুল স্ত্রী ফুলের ১৫ থেকে ২৯ দিন পর জন্মায়। তাই পুরুষ গাছ স্ত্রী গাছের ১৫ থেকে ২০ আগে লাগানো উচিত। জেনে নিন>> টমেটোর রোগ,রোগের কারণ ও প্রতিকার […]

  3. […] টমেটো সংগ্রহ করে বাসায় সংরক্ষণ করার জন্য আধা পাকা টমেটোসহ টমেটো গাছ তুলে ঘরের ঠান্ডা জায়গায় উপুড় করে ঝুলিয়ে টমেটোগুলোকে পাতলা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। পরবর্তীতে ৪-৫ মাস পর্যন্ত অনায়াসে এ টমেটো ব্যবহার করা যাবে। পড়ুন>> টমেটোর রোগ,রোগের কারণ ও প্রতিকার […]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর















error: Content is protected !!